বিয়ের খরচ সামলাবেন যেভাবে

  

পিএনএস ডেস্ক:বিয়েতে কী ভাবে সাজবেন, কী পরবেন, কারা আসবেন, কী ছবি তুলবেন, কী মেনু হবে সব কিছু নিয়েই আমাদের অনেক পরিকল্পনা থাকে।

সেই স্বপ্নপূরণ করতে গিয়ে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই বিয়ের খরচ চলে যায় হাতের বাইরে। কীভাবে বিয়ের সব আচার-অনুষ্ঠান করেও নিয়ন্ত্রণহীন খরচে লাগাম দেবেন জেনে নিন-

* গেস্ট লিস্টের তালিকা: বিয়ে জীবনের খুবই গুরুত্বপূর্ণ ধাপ। এই বিশেষ দিনে পরিবার, আত্মীয়-বন্ধুদের পাশে থাকা খুবই জরুরি। অনেকের সঙ্গেই হয়তো সে ভাবে যোগাযোগ না থাকলেও চক্ষু লজ্জার খাতিরে বিয়েতে নিমন্ত্রণ করতে হয়। গেস্ট লিস্টের তালিকা সংক্ষিপ্ত করে খরচ অনেকটাই আয়ত্তে রাখতে পারেন।

* খাবার পরিবেশন: বিয়ে বাড়িতে অতিথিদের খুশি করার প্রধান উপায় ভাল খাবার পরিবেশন। একমাত্র ভাল খাবারই মনে থেকে যায়। এখন ট্রেন্ড মেনে অনেকেই নানা রকম প্ল্যাটার, কন্টিনেন্টাল রাখতে চান মেনুতে। কোনও মানুষই কি এত খাবার খেতে পারেন? তাই অল্প আইটেমের মধ্যেই সুস্বাদু খাবার পরিবেশনের চেষ্টা করুন। এতে অতিথিরা তৃপ্তি করে খেতেও পারবেন, খরচও নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

* ওয়েডিং ফটোগ্রাফি: ওয়েডিং ফটোগ্রাফি এখন বিয়ের খুবই গুরুত্বপূর্ণ অংশ। নামকরা সংস্থা বা ফটোগ্রাফারকে দিয়ে ফোটোগ্রাফি করালে স্বাভাবিক ভাবেই বেশি খরচ হবে। ফ্রেশারদের দিয়ে ফটোগ্রাফি করালে অনেক কম খরচে করাতে পারবেন। এরা কাজও করবেন যত্ন সহকারে, নতুন আইডিয়াও পেয়ে যাবেন প্রচুর।

* পোষাক ও গয়না: নিজের বিয়েতে সুন্দর করে সাজতে সকলেই চান। অনেকেই ডিজাইনারদের থেকে বিশেষ পছন্দের পোষাক, শাড়ি কিনতে গিয়ে বেশি খরচ করে ফেলেন। ডিজাইনার পোষাক না কিনে ব্র্যান্ডেড দোকান থেকে কিনলে অনেকটাই কম দামে ভাল মানের পোষাক পাবেন। গয়নার ক্ষেত্রে যদিও ব্যাপারটা উল্টো। ব্র্যান্ডেড দোকানে গয়নার দাম বেশি।

* বিয়ের সময়: আমাদের দেশে বিয়ের নির্দিষ্ট মৌসুম রয়েছে। আবার আরামদায়ক আবহাওয়ার কারণে অধিকাংশ বিয়েই শীতকালে হয়। অন সিজনে প্রচুর বিয়ে হওয়ায় এই সময় ডেকরেশন, কেটারিং, সব কিছুর খরচই বেড়ে যায়। অফ সিজনে বিয়ে করলে অনেক কিছুতে ডিসকাউন্ট পাওয়া যায়।

* আগে থেকেই বুকিং: হোটেল বা এক্সটিক লোকেশনে বিয়ের অনুষ্ঠান করলে অনেক খরচ হবে। সময় থাকতে থাকতে ঘুরে দেখে ব্যাঙ্কয়েট হল বুক করে নিন। আগে সময় থাকতে বুক করলে বাজেট অনুযায়ী সুন্দর ব্যাঙ্কয়েট হল পেয়ে যাবেন। বিয়ে যত এগিয়ে আসবে তাড়াহুড়োয় বুক করলে ভাড়াও বেড়ে যাবে।

* বিয়ের কার্ড: ইনভিটেশন কার্ডের ব্যবহার শুধুই অতিথিদের নিমন্ত্রণ জানানোর জন্য। তারপর অধিকাংশ বাড়িতেই সেই কার্ড পুরনো কাগজপত্রের জঞ্জালে ঠাঁই পায়। তাই কার্ডের পিছনে অযথা খরচ করার কোনও মানে হয় না। সিম্পল অথচ রুচিসম্মত বিয়ের কার্ড করুন। বড় দোকান বা ডিজাইনার কার্ড শপে গেলে দাম বেশি পড়বে। নিজে ডিজাইন করে কাস্টমাইজড কার্ডও বানাতে পারেন। সুন্দর হবে অথচ দাম থাকবে আয়ত্তে।


পিএনএস/আলআমীন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech