মিয়ানমারে একই পরিবারের চারজনকে হত্যা করল কারা?

  22-06-2021 07:27PM

পিএনএস ডেস্ক : মিয়ানমারের একই পরিবারের চারজনকে হত্যা করা হয়েছে। তবে কারা এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে সেটা অস্পষ্ট রয়ে গেছে। দেশটির সেনাবাহিনী ও বিদ্রোহী গোষ্ঠী পরস্পরকে দোষারোপ করছে। মিয়ানমারের স্থানীয় গণমাধ্যম ‘মিয়ানমার নাউয়ের’ খবরে বলা হয়েছে, দেশটির কালে শহরের সাগিং এলাকায় একই পরিবারের চারজনকে হত্যা করা হয়েছে। পাশাপাশি পরিবারের আরেকজন সদস্যকে মারাত্মকভাবে আহত করা হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, শনিবার রাত ৮টার দিকে নিয়ান পিং থর ওয়ার্ডের একটি বাড়িতে ১০ জন সেনা সদস্য উপস্থিত হয়। এ সময় বাড়িতে থেকে বের হয়ে আসলে সেনারা বাড়ির কর্তা উইন জাও (৫০) ও তার ২৩ বছর বয়সী ছেলে থিয়া অংকে গুলি করে হত্যা করে।

এরপর সেনা সদস্যরা বাড়ির ভেতরে গিয়ে উইন জাওয়ের শ্যালক জাও জাও (৩৫) এবং তার স্ত্রী সান সান মাওকে (৪৮) গুলি করে হত্যা করে। এছাড়া তারা জাওয়ের কন্যাকে গুলি করে এতে তিনি মারাত্মকভাবে আহত হন।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, সেনাবাহিনীর কি কারণে একই পরিবারের চারজনকে হত্যা করল সে বিষয়টি এখনও স্পষ্ট নয়।

তবে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী এই হত্যাকাণ্ডের দায় অস্বীকার করেছে। তারা দাবি করেছে, মিয়ানমারের গণতন্ত্রপন্থি নেত্রী অং সান সু চির রাজনৈতিক দল ‘ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসি’র সদস্যরা এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, নিহত পরিবারের মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর সঙ্গে ব্যবসায়িক সম্পর্ক রয়েছে। এই পরিবার স্থানীয়দের সঙ্গেও সুসম্পর্ক বজায় রাখতো।

তারা জানান, হত্যাকাণ্ড সংগঠিত হওয়ার ৩০ মিনিট পর একটি টয়েটো মার্ক টুসহ ছয়টি গাড়িতে সেনাবাহিনী এসে লাশ নিয়ে যায়। লাশ নিয়ে গাড়িগুলো রাত সাড়ে ১২টার দিকে রওনা দেয়।

স্থানীয়দের দাবি, সেনাবাহিনী লাশের সঙ্গে কয়েকটি চাউলের বস্তা, রান্নার তেল এবং আসবাবপত্র নিয়ে যায়। তারা সকল সিসিটিভি ফুটেজ ধ্বংস করে যায়।

এই ঘটনায় কালে শহরের পিপলস ডিফেন্স ফোর্স রোববার একটি বিবৃতি দিয়েছে। এতে বলা হয়েছে, তারা এই হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে কিছু জানে না এবং সেনাবাহিনীকে এর দায় নিতে হবে।

তবে সোমাবার মিয়ানমারের সেনাবাহিনী পরিচালিত একটি সংবাদপত্রে এ নিয়ে খবর প্রকাশ হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, এনএলডি সমর্থকরা অমানবিক আত্মঘাতী হত্যাকাণ্ড সংগঠিত করছে। শান্তিতে বসবাসকারী মানুষদেরকে তারা বোমা মেরে আতঙ্কগ্রস্ত করছে। জ মিনের হত্যাকারীদের শনাক্ত করে শাস্তির আওতায় আনা হবে বলেও ওই সংবাদে বলা হয়।

রোববার সকাল ১০টার দিকে ওই চারটি লাশ তাদের বাড়িতে এনে শেষকৃত্য সম্পন্ন করা হয়।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন