নাভালনির দেহ গোপনে সৎকার করার জন্য চাপ দেয়া হচ্ছে তার মাকে

  24-02-2024 03:17PM


পিএনএস ডেস্ক: ছেলের দেহ গোপনে সৎকার করার জন্য চাপ দেয়া হচ্ছে মাকে । সই করিয়ে নেয়া হয়েছে মৃত্যুর শংসাপত্রেও। এনিয়ে ভিডিওবার্তা দিয়ে রুশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন অ্যালেক্সি নাভালনির মা লুডমিলা নাভালনায়া।

ইউটিউবে পোস্ট করা একটি ভিডিওবার্তায় কথা বলার সময়, লুডমিলা বলেছিলেন রাশিয়ান কর্তৃপক্ষ তাকে তার ছেলের দেহ মর্গে দেখার অনুমতি দিয়েছে। লুডমিলা জানান যে, তদন্তকারীরা তাকে ক্রেমলিন সমালোচক নাভালনির অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার বিষয়ে "ব্ল্যাকমেইল" করছিল এবং তাকে একটি ব্যক্তিগত দাফন অনুষ্ঠান করতে বাধ্য করার চেষ্টা করা হয়।

লুডমিলার অভিযোগ, ওরা পুরো বিষয়টি গোপনে সেরে ফেলতে চাইছে। কোনও শোকসভা করতে বারণ করেছে। একটি কবরস্থানে নিয়ে গিয়ে আমাকে বলা হয়, এখানেই ছেলেকে সমাধিস্থ করে দিন। কিন্তু আমি আপত্তি জানাই।

রাশিয়ান কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে তাৎক্ষণিক কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। নাভালনির দল বলেছে যে ডেথ সার্টিফিকেট, যা তার মাকে দেখানো হয়েছে, তাতে বলা হয়েছে তিনি প্রাকৃতিক কারণে মারা গেছেন। নাভালনি রাশিয়ার সবচেয়ে পরিচিত বিরোধী রাজনীতিবিদ, ৪৭ বছর বয়সে গত শুক্রবার আর্কটিক পেনাল কলোনিতে আকস্মিকভাবে মারা যান। তার সহযোগী এবং পরিবার অভিযোগ করেছে, ক্রেমলিন তাকে হত্যা করেছে, যদিও সেই অভিযোগ রাশিয়া প্রত্যাখ্যান করেছে।

কালো পোশাক পরিহিত অবস্থায় একটি ভিডিওতে শান্ত কণ্ঠে নাভালনায়া বলেন, তদন্তকারীরা দাবি করেছেন যে তারা মৃত্যুর কারণ জানেন। তাদের সমস্ত মেডিকেল এবং আইনি নথি প্রস্তুত রয়েছে, যা আমি দেখেছি এবং আমি মেডিকেল ডেথ সার্টিফিকেটে স্বাক্ষর করেছি।

আইন অনুসারে, তাদের এখনই আমাকে আলেক্সির লাশ দেয়া উচিত ছিল, কিন্তু তারা এখনও পর্যন্ত তা করেনি। পরিবর্তে তারা আমাকে ব্ল্যাকমেইল করছে কোথায়, কখন এবং কীভাবে আলেক্সিকে সমাধিস্থ করা হবে সে সম্পর্কে আমাকে শর্ত দিয়েছে। এটা বেআইনি।

নাভালনির মা বলেছেন, আমি এই ভিডিওটি রেকর্ড করছি কারণ তারা আমাকে হুমকি দিতে শুরু করেছে। আমার চোখের দিকে তাকিয়ে তারা বলেছে যে আমি যদি গোপন অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় রাজি না হই, তারা আমার ছেলের লাশ নিয়ে অন্য কিছু করবে।

কিন্তু কোনো শর্তে বশবর্তী হয়ে ছেলের শেষকৃত্য করতে রাজি নন অ্যালেক্সি নাভালনির মা লুডমিলা। তিনি শুধু চান আইন অনুযায়ী সবকিছু হোক। নাভালনির একটি ১৫ বছর বয়সী ছেলের পাশাপাশি ২৩ বছর বয়সী মেয়ে দাশা রয়েছে, যিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পড়াশোনা করেন। দাশা বারবার তার বন্দী বাবার মুক্তির দাবি জানিয়ে এসেছেন। শুক্রবার যখন নাভালনির মৃত্যু ঘোষণা করা হয়েছিল তখন নাভালনির স্ত্রী তার সন্তানদের দেখতে সঙ্গে সঙ্গে ভ্রমণ করেননি, বরং তার পরিবর্তে মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে দাঁড়িয়ে স্বামীর মৃত্যুর জন্য রাশিয়ান প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে দায়ী করেন। সূত্র : আলজাজিরা

পিএনএস/আনোয়ার

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন