ফের ৫ দিনের রিমান্ডে মামুনুল হক

  04-05-2021 08:57PM

পিএনএস ডেস্ক : হেফাজতে ইসলামের বিলুপ্ত কমেটির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হকের পুনরায় ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। আজ মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর হাকিম সত্যব্রত সিকদার এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এদিকে হেফাজতের এ নেতাকে ২০১৩ সালে শাপলা চত্বরে সহিংসতার আরও ৬ মামলায় একইদিন গ্রেপ্তার দেখানোর আবেদন মঞ্জুর করেছে একই আদালত। অন্যদিকে রাজধানীর পল্টন থানার নাশকতার পৃথক তিন মামলায় হেফাজতে ইসলামের নেতা মাওলানা জুনায়েদ আল হাবীবের আরও চার দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

একই আদালত তিন মামলায় ৩৪ দিনের রিমান্ড আবেদনের শুনানি শেষে এ রিমান্ডের এই আদেশ দেন। এর আগে দু‘দফায় ১৪ দিনের রিমান্ড শেষে মামুনুল হককে মঙ্গলবার আদালতে হাজির করে চলতি বছরের ২৬ মার্চে জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে সমান সংহিসতার ঘটনার এক মামলায় ১০ দিন এবং আরেক মামলায় ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ।

মামুনুল হকের পক্ষে তার আইনজীবী সৈয়দ জয়নুল আবেদীন মেজবাহ রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করে বলেন, তাকে যে মামলায় রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে, তিনি সেই মামলার সাথে সম্পৃক্ত নন। ঘটনাস্থলে তিনি ছিলেন না। গত ২৬ মার্চ মামুনুল হক বাংলাবাজার জুমা মসজিদে নামাজ পড়ান। নামাজ শেষে পুলিশ কর্তৃপক্ষ তাকে জানায়, বায়তুল মোকাররমে মুসল্লিরা জড়ো হয়েছেন। ভেতরে অনেক মুসল্লি মসজিদে আটকা পড়ে গেছেন। তারা আমাদের বিশ্বাস করতে পারছে না। আপনি (মামুনুল হক) একটু আসেন। এসে থেকে তাদের বের করে দেন। একজন ডিআইজির অনুরোধে তিনি বায়তুল মোকাররম যান। সেখানে গিয়ে তিনি তাদের বের করে দেন। এরপর তিনি মসজিদে যান। পুলিশ কর্মকর্তার অনুরোধে সেখানে যাওয়া কি তার অন্যায় হয়েছে। পুলিশের অনুরোধ রক্ষা করতে গিয়ে আজকে তার বিরুদ্ধে এমন একটা মামলা। যা খুবই দুঃখজনক। আইন অনুযায়ী পুলিশের কথা শুনতে বাধ্য। যদি এভাবে হয় এরপর কি করব?

তিনি মামুনুল হকের রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিন আবেদন করেন। রাষ্ট্রপক্ষে ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু জামিনের বিরোধিতা করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত এক মামলায় তিন দিন এবং আরেক মামলায় ২ দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন।

এর আগে গত ১৮ এপ্রিল দুপুরে মোহাম্মদপুরের জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। গত ১৯ এপ্রিল ভাঙচুরের মামলায় ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। এর পর গত ২৬ এপ্রিল ২০১৩ সালে শাপলা চত্বরে সহিংসতার পল্টন থানার মামলায় চার দিন এবং মোদি বিরোধী সহিংসতার ঘটনায় মতিঝিল থানার মামলায় তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

উল্লেখ্য, গত বছরের নভেম্বরে ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে প্রকাশ্যে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য স্থাপনের বিরোধিতা করে আলোচনায় আসেন মামুনুল হক। এ নিয়ে নানা আলোচনা-সমালোচনার মধ্যে ডিসেম্বরে কুষ্টিয়া শহরে বঙ্গবন্ধুর একটি নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভাঙচুর করা হয়। ভাস্কর্য বিরোধিতা এবং ভাঙচুরের ঘটনায় হেফাজতে ইসলামের আমির জুনাইদ বাবুনগরী ও যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের বিরুদ্ধে ঢাকার আদালতে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হয়।

এর মধ্যে আবার গত মার্চে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে নরেন্দ্র মোদির সফরের বিরোধিতায় ঢাকা, চট্টগ্রাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়াসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সহিংসতা হয়। সুবর্ণজয়ন্তীর দিনে ঢাকায় বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ এলাকায় সংঘাত-নাশকতার ঘটনায় মামুনুল হকসহ ১৭ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়। এর মধ্যে নারায়ণগঞ্জ সোনারগাঁওয়ের একটি রিসোর্টে গত ৩ এপ্রিল এক নারীসহ অবরুদ্ধ হয়ে আবারও আলোচনায় আসেন মামুনুল হক। যদিও ওই নারীকে নিজের দ্বিতীয় স্ত্রী বলে দাবি করেন হেফাজতের এই নেতা।

আরও উল্লেখ্য যে, এ পর্যন্ত সংগঠনটির অন্তত আটজন গুরুত্বপূর্ণ নেতাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন