চিত্র-বিচিত্র

একটি আমের ওজন সোয়া চার কেজি!

  

পিএনএস ডেস্ক: দেশে আমের মৌসুম শুরু হয়েছে। বাজারে আসতে শুরু করেছে লোভনীয় স্বাদের পাকা আম। এ দেশে সাধারণত বড় আকৃতির আমের ওজন গড়পরতায় আধা কেজির মতো হয়ে থাকে। সেখানে সোয়া চার কেজি ওজনের এক আম ফলিয়ে রীতিমতো বিশ্বরেকর্ডে নাম লিখিয়েছেন কলম্বিয়ার দুই কৃষক।গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি তাদের ওয়েবসাইটে জানিয়েছে, কলম্বিয়ার গুয়াইয়াতা এলাকায় জার্মা অরল্যান্দো নোভোয়া বারেরা এবং রেইনা মারি মারোকির বাগানে ধরেছে ৪ কেজি ২৫০ গ্রাম ওজনের প্রকাণ্ড একটি আম।এর আগে বিশ্বের সবচেয়ে ভারী আমের

পেঙ্গুইন সম্পর্কে কিছু অজানা তথ্য

  

পিএনএস ডেস্ক: পেঙ্গুইনের বাস দক্ষিণ মেরুবলয়ের আশেপাশে। হিমশীতল সমুদ্রবাসী এইপেঙ্গুইন পাখিরা দুর্দান্ত সাঁতারু এবং তাড়া করে মাছ ধরে। হাঁটতে অপটু, তবে উপুড় হয়ে শুয়ে দুই হাতডানা নেড়েচেড়ে বরফের উপর দিয়ে এগিয়ে যায় অকপটে। বুক পেট ধবধবে সাদা, বাকি শরীর কালো বা নীলচে। মানুষের মতো হাঁটলেও খুব বেশী উচ্চতায় উড়তে পারে না এরা। তবে প্রাণীজগতে শান্ত জীব হিসেবে সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করে এই পাখিটি।তবে শুধু দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য বা নয়নাভিরাম দৃশ্যের জন্য নয়। পেঙ্গুইন আমাদের বাস্তুতন্ত্রের অন্যতম এক

যে প্রাণী ৪০ বছর না খেয়ে বাঁচে!

  

পিএনএস ডেস্ক: সব গ্রহদের মধ্যে পৃথিবীই এমন এক গ্রহ যেখানে অত্যাধিক গরম ও প্রচন্ড শীত দুইই অনুভব করা যায়। তবে আমরা অনেকেই জানি, শীতল পরিবেশে বাস করা কোনো প্রাণীকে যদি উষ্ণ পরিবেশে রাখা হয় তবে সেই প্রাণীর পক্ষে বেঁচে থাকা খুবই কষ্টের। তবে পৃথিবীতে এমন এক প্রাণী রয়েছে যে একই সাথে অত্যাধিক গরম সহ্য করার পাশাপাশি অস্বাভাবিক ঠাণ্ডাও সহ্য করে বেঁচে থাকতে পারে।এই বিশেষ প্রাণীটির নাম হচ্ছে টারডিগ্রেড। ১৭৭৩ সালে এই প্রাণীটির খোঁজ সর্বপ্রথম পান জার্মান প্রাণীবিজ্ঞানী জোহান। প্রাণীটির সহ্য ক্ষমতা

ব্যাগটির মূল্য একটি আসল বিমানের চেয়েও বেশি!

  

পিএনএস ডেস্ক: ব্যাগের আকৃতির কোনো নির্দিষ্টতা নেই। ত্রেতা আকর্ষণ বাড়াতে কোম্পানিগুলো নানান আকৃতির ব্যাগ তৈরি করে থাকেন। কখনো কখনো নিশ্চয় কুকুর কিংবা বিড়াল আকৃতির ব্যাগও দেখেছেন। এগুলো আসলে পোষ্যপ্রিয় মানুষদের বাড়তি আকর্ষণ পেতেই তৈরি করা হয়।শীর্ষ ফরাসি ফ্যাশন হাউসের অন্যতম লুই ভিটনের এই ব্যাগ নিয়ে অনলাইনে চলছে তুমুল রসিকতা আর বিতর্ক। ব্যাগটির নকশা করেছেন লুই ভিটনের মেনসওয়্যার কালেকশনের শিল্প পরিচালক ভার্জিল আবলোহ। বিমান আকৃতির এই ব্যাগটির দাম ধরা হয়েছে একক ইঞ্জিনচালিত একটি প্রকৃত বিমানের

কাজের চাপে বোতলে প্রস্রাব করে আমাজন কর্মীরা!

  

পিএনএস ডেস্ক: কাজের চাপের কারণে ই-কমার্স জায়ান্ট অ্যামজনের অনেক কর্মীকে বোতলে প্রস্রাব করতে হয় বলে অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি নিয়ে সাবেক এক কর্মী বই লেখার পর প্রতিষ্ঠানটির অনেক কর্মী মুখ খুলছেন।ওয়াশিংটন পোস্ট’র প্রতিবেদনে বলা হয়, আমাজন কর্মীদের বোতলে প্রস্রাব করা নিয়ে মার্কিন কংগ্রেসের এক সদস্য টুইট করেন। এরপর বিতর্ক শুরু হয়। প্রাথমিকভাবে এই অভিযোগ অস্বীকার করলেও পরে আমাজন স্বীকার করতে বাধ্য হয় যে, আমেরিকায় তাদের কোনো কোনো গাড়িরচালককে অবস্থা বিশেষে বোতলে প্রস্রাব করতে হয়।ব্রিটিশ সাংবাদিক

যে সবজির প্রতি কেজির দাম লাখ টাকারও বেশি!

  

পিএনএস ডেস্ক: হিউমুলাস লুপুলাস। একটি গাছের বিজ্ঞানসম্মত নাম। যদিও খুব কম মানুষই এই নামটির সঙ্গে পরিচিত।সারাবিশ্বের কাছে এই গাছটির অবশ্য আলাদা একটি পরিচয় রয়েছে। বিশ্বের সবচেয়ে দামি সবজির গাছ এটি। এর প্রতি কেজির দাম ১ লাখ টাকারও বেশি!বাজারে চাহিদা না থাকায় ভারত-বাংলাদেশে এই সবজির চাষ হয় না। মূলত ইউরোপ এবং আমেরিকায় এর বহুল উৎপাদন হয়ে থাকে।হিউমুলাস লুপুলাস একটি বহুবর্ষজীবী উদ্ভিদ। সম্প্রতি ভারতের বিহারের এক ব্যক্তি তার জমিতে এই গাছের চাষ করেন। এক আইএএস অফিসার সবজির ছবি-সহ দামের

প্রেমিকাকে শেকলে বাঁধলেন প্রেমিক!

  

পিএনএস ডেস্ক: আলেকজান্ডার গুতলে ও ভিক্টোরিয়া পুস্ত ভিতোভা, তরুণ এই যুগল থাকেন ইউক্রেনের খারবিখ শহরে। যাপিতজীবনের ছোটখাটো বিষয়ে ঝগরা ফ্যাসাদ নিয়েই ঝামেলা শুরু। প্রতি সপ্তাহে বিভিন্ন বিষয়ে মতানৈক্যে তাদের ছাড়াছাড়ি হয়ে যেত। ঝগড়ায় প্রেমিকা ভিক্টোরিয়া সম্পর্ক আর টিকিয়ে রাখবেন না বলে সিদ্ধান্তও নিয়েছিলেন। কিন্তু শেষমেশ ভালোবাসার সম্পর্ক যেন ছিন্ন না হয়, সেজন্য এক বিশেষ কৌশলের কথা মাথায় আসে প্রেমিক আলেকজান্ডারের। দুজনে মিলেই সিদ্ধান্ত নিলেন ভালোবাসার প্রমাণ দিতে তারা তিনমাসের জন্য শেকলে নিজেদের

আড়াই হাজারের বাটি পাঁচ কোটিতে বিক্রি!

  

পিএনএস ডেস্ক:বাটিটা কিনতে লেগেছিল ৩৫ ডলার। আর সেটাই নিলামে বিক্রি হলো সাত লাখ ২০ হাজার ডলারে। বাটির কল্যাণেই রাতারাতি কপাল ফিরল এক আমেরিকানের।সাদা রঙের পোর্সিলিনের বাটি। আকারে ছোটই। তার উপর নীল রঙের অসাধারণ সুন্দর কাজ। মূলত ফুলের নকশা। বাড়ির কাছেই ইয়ার্ড সেলে এই বাটিটা দেখে পছন্দ হওয়ায় ৩৫ ডলার(আড়াই হাজার টাকা) দিয়ে কিনে ফেলেছিলেন এক আমেরিকান। আর এই বাটিই তার ভাগ্য ফিরিয়ে দিল। জলের দামে কেনা বাটি বিক্রি হলো সাত লাখ ২১ হাজার ডলারে(পাঁচ কোটি টাকার বেশি)।হবে নাই বা কেন। এ তো আর যে সে

১১৮৭ ডিগ্রি ফুটন্ত আগ্নেয়গিরি টপকে রেকর্ড গড়ল নারী

  

পিএনএস ডেস্ক: নিচে টগবগ করে ফুটছে লাভা। তার ওপর দিয়ে দড়ি বেয়ে আগ্নেয়গিরি লেকের উপর এক প্রান্ত থেকে অন্যপ্রান্তে পার করে যাওয়া এক নারীর ভিডিও ও ছবি ভাইরাল হয়েছে। জানা গেছে, কারিনা ওলিয়ানী নামে ওই নারী এই দুঃসাহস দেখিয়ে ওয়ার্ল্ড রেকর্ড করেছেন। আগুনের ওপর দিয়ে পার করেছে প্রায় ১০০.৫৮ মিটার। সে সময় তাপমাত্রা ছিল প্রায় ১১৮৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আগ্নেয়গিরি লেকটির নাম এরতা আলে। ইথোপিয়ার আফারে রয়েছে এই লেক। গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড করেছেন ওই নারী। তিনি একজন ব্রাজিলিয়ান চিকিৎসক। কারিনা ওলিয়ানী

ছয় মাস পানির নিচে আইফোন, উদ্ধারেও সচল!

  

পিএনএস ডেস্ক: চলতি পথে মানুষের কত কিইনা হারিয়ে যায়। আর হারানো সেই প্রিয় বা দামি জিনিস খুঁজে পেলে কার না ভাল লাগে। আর যদি সেটি প্রিয় আইফোন হয় তবে তো কথাই নেই। মাস ছয়েক আগে ২৫০ বর্গকিলোমিটারের লেকের তলায় নিজের আইফোনটি হারিয়েছিলেন ফাতেমে গদসি।সম্প্রতি তিনি জানতে পেরেছেন তার হারানো ফোনটি কেউ একজন খুঁজে পেয়েছেন। এমনকি ফোনটি নাকি সচলও ছিল। বাম্পার বোটে চড়ে ঘোরার সময় নিজের আইফোনটি হারিয়েছিলেন ফাতেমে।তিনি বলেন, পরিস্থিতি এমন হয়েছিল যে ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছিলাম আর তখনই ফোনটি পানিতে পড়ে যায়।