ইসলাম

ঈদে মিলাদুন্নবী নিয়ে চাঁদ দেখা কমিটির সভা রোববার

  

পিএনএস ডেস্ক : ইসলামিক ফাউন্ডেশন বায়তুল মোকাররম সভাকক্ষে আগামীকাল জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির এক সভা অনুষ্ঠিত হবে। ১৪৩৯ হিজরি সনের পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) এর তারিখ নির্ধারণ ও রবিউল আউয়াল মাসের চাঁদ দেখার সংবাদ পর্যালোচনা এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণের লক্ষ্যে রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৫টার দিকে (বাদ মাগরিব) এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সভায় ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভাপতি অধ্যক্ষ মতিউর রহমান সভাপতিত্ব করবেন । ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আজ এ কথা জনানো হয়েছে।

কিয়ামতের মাঠে যেসব বান্দা আল্লাহর সাক্ষাৎ লাভ করবেন

  

পিএনএস ডেস্ক: যেসব বান্দা কিয়ামতের মাঠে আল্লাহর সাক্ষাৎ লাভ করবেন । মহান আল্লাহ তা’য়ালা মানুষকে সৃষ্টি করা হয়েছে তাঁর ইবাদত করার জন্যে। এ বিষয়ে তিনি মানুষকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে বহু আদেশ, উপদেশ ও জ্ঞান দান করেছেন এবং সেগুলি মেনে চলার কঠোর আদেশ দিয়েছেন। কোন কারণবশতঃ মানুষ ভুল করে ফেললে, তওবার মাধ্যমে নিজেকে সংশোধন করে সঠিক পথে ফিরে আসার সুযোগ রয়েছে। এরপরেও কেউ আল্লাহর আদেশ অমান্য করলে সে শাস্তিযোগ্য অপরাধী হিসাবে গণ্য হবে।আল্লাহর নিকট প্রত্যাবর্তন বা সমবেত হওয়ার জন্য একটি সময় নির্ধারিত

আল্লাহর প্রিয় বান্দা হতে হলে হৃদয়টা স্বচ্ছ হতে হয়

  

পিএনএস ডেস্ক: আমার জীবনে এমন কিছু মানুষের সাথে দেখা হয়েছে যারা হয়ত 'হুজুর' টাইপ না, তাদের ইসলামের বুঝগুলোও স্পষ্ট না। হয়ত ধর্মের ব্যাপারে আগ্রহও কম। কিন্তু মানুষগুলোর চিন্তা বেশ স্বচ্ছ। তারা যে ভুল কাজগুলো করেন, সেগুলো করলে তারা স্বীকার করে, তারা অন্য কাউকে ইচ্ছাকৃতভাবে আঘাত করে না, গীবত করে না অযথাই অন্যকে ছোট করে নিজে বড় হতে গিয়ে। তারা মানুষের অনুভূতিকে শ্রদ্ধা করে এমনকি ভিন্নমতের হলেও। এরকম মানুষগুলোর হৃদয়ে যে আলো দেখতে পাই, তা আমি অনেক 'কড়া ধার্মিক' ভাব ধরা টাইপের লোকদের কাছে কানাকড়িও

ইবাদতে মনোযোগই জান্নাত লাভের উপায়

  

পিএনএস, ইসলাম: ইখলাস তথা একনিষ্ঠ ইবাদত ছাড়া বান্দার কোনো আমলই গ্রহণযোগ্য নয়। আর এ কারণেই আল্লাহ তাআলা সুরা যুমারে প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়অ সাল্লামকে লক্ষ্য করে ঘোষণা করেন, ‘(হে নবি) আপনি ইখলাসের সঙ্গে আল্লাহর ইবাদত করুন। জেনে রাখুন! ইখলাসপূর্ণ ইবাদতই আল্লাহর জন্য।’আল্লাহ তাআলা ইখলাসপূর্ণ ইবাদতকেই তাঁর জন্য স্বীকৃতি প্রদান করেছেন। ইবাদত অল্প হোক আর বেশি হোক; ছোট হোক আর বড় হোক; তা আল্লাহর কাছে গ্রহণযোগ্য হতে একনিষ্ঠতা যেমন জরুরি তেমনি তা শিরকমুক্ত হওয়াও জরুরি।আল্লাহ তাআলা

নেক হায়াত বৃদ্ধি ও সুস্থতা লাভের আমল

  

পিএনএস, ইসলাম: প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হাদিসে ইরশাদ করেন, ‘আল্লাহ তাআলার ৯৯টি গুণবাচক নাম রয়েছে। যে ব্যক্তি এ গুণবাচক নামগুলোর জিকির করবে; সে জান্নাতে যাবে।’দৈনন্দিন জীবনে আল্লাহ তাআলার এ গুণবাচক নামগুলোর জিকির আজকার ও আমলে রয়েছে আলাদা আলাদা ফজিলত ও উপকারিতা।আল্লাহ তাআলার গুণবাচক নাম সমূহের মধ্যে (اَلْحَيُّ) ‘আল-হাইয়্যু’ একটি। অসুস্থ ব্যক্তির আরোগ্য লাভ, নেক হায়াত বৃদ্ধি এবং আত্মিক প্রশান্তি লাভে এ নামের জিকির অনেক কার্যকরী।আল্লাহর গুণবাচক নাম (اَلْحَيُّ)

চিন্তামুক্ত থাকতে রাসুলুল্লাহ (স.)এর ছোট্ট দোয়া

  

পিএনএস ডেস্ক: চিন্তা মানুষের অনেক মারাত্মক ব্যাধির কারণ। চিন্তা ও অস্থিরতা মানুষকে চরমভাবে অসুস্থ করে তোলো। চিন্তা ও অস্থিরতার কোনো ওষুধ আজও আবিষ্কৃত হয়নি।চিকিৎসা বিজ্ঞানে মানুষকে চিন্তা ও অস্থিরতা থেকে বিরত রাখতে ঘুমের উপদেশ দিয়ে থাকে। যদি স্বাভাবিকভাবে ঘুম না আসে তবে ঘুমের ওষুধের মাধ্যমে চিকিৎসা দেয়া হয়।প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মুমিন মুসলমানের জন্য চিন্তামুক্ত থাকার চিকিৎসা দিয়েছেন। মানুষকে মারাত্মক অসুস্থা থেকে হেফাজত করতে চিন্তামুক্ত হওয়ার বিকল্প নেই।চিন্তা ও

কিছু হারাম কাজ

  

পিএনএস ডেস্ক: হারাম একটি আরবি শব্দ যার অর্থ নিষিদ্ধ। হারাম হচ্ছে এমন জিনিস যা কুরআন ও সুন্নাহের মাধ্যমে নিষিদ্ধ হয়েছে এবং এই বিষয়টা মানাই হচ্ছে মানুষের জন্য উপকারী। সেটা শারীরিকভাবেও হতে পারে আবার মানুষিকভাবেও হতে পারে। সুতরাং যেই বিষয়গুলো হারাম সেগুলো থেকে আমাদেরকে অবশ্যই দূরে থাকতে হবে। নিন্মে কিছু হারাম বিষয়ের তালিকা তুলে ধরা হলো।মদ ও জুয়া খাওয়া হারাম: মদ ও জুয়া ইসলামের সবচেয়ে বড় পাপগুলোর মধ্যে একটি। আল্লাহ ও তার নবী (সা.) আমাদের মদ খাওয়া থেকে নিষেধ করেছেন। কুরআনে মহান আল্লাহপাক

কেয়ামতের ময়দানের প্রথম বিচার

  

পিএনএস ডেস্ক: ইখলাস তথা একনিষ্ঠতা বহির্ভূত ইবাদত আল্লাহর দরবারে কবুল হবে না। যাদের ইবাদতে একনিষ্ঠতা নেই; আছে রিয়া বা প্রদর্শনেচ্ছার হিসাব-নিকাশ ও বিচার-ফয়সালা হবে প্রথম। প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হাদিসে পাকে সে প্রসঙ্গ সুস্পষ্টভাবে তুলে ধরেছেন।দুনিয়ার খ্যাতি ও যশ লাভে যে ব্যক্তি কোনো ভাল ইবাদত-বন্দেগি করে তার কোনো ভালকাজই গ্রহণ যোগ্য হবে না। নিয়তবিহীন অন্তসারশূন্য আমল আল্লাহর দরবারে কবুল হবে না। এ ব্যাপারে প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম একটা দীর্ঘ হাদিস বর্ণনা

আজানের উপকারিতা

  

পিএনএস ডেস্ক: আজান হলো মানুষের দুনিয়া ও পরকালের কল্যাণ লাভে আল্লাহ তাআলার ফরজকৃত পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ প্রতিষ্ঠার আহ্বান। নামাজের দিকে আহ্বান করা সবচেয়ে কল্যাণজনক কাজ। এ কাজের ব্যাপারে আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারিমে ইরশাদ করেন, ‘তার চেয়ে উত্তম কে আছে? যে মানুষকে আল্লাহর দিকে আহ্বান করে।’আজানের শাব্দিক অর্থ হলো জানিয়ে দেয়া, আহ্বান করা, নামাজের জন্য আহ্বান করা, জামাআতে নামাজ আদায়ের প্রতি মানুষকে আহ্বানের উচ্চ আওয়াজই হলো আজান।‘আজান’ শব্দটি কাউকে আহ্বান বা ঘোষণা করা অর্থে ব্যবহৃত হয়। তার

আল্লাহর পথে দানের তাৎপর্য ও প্রয়োজনীয়তা

  

পিএনএস ডেস্ক:আল্লাহ তাআলা মানুষকে তাঁর দেয়া রিজিক হতে তাঁরই পথে দান করার নির্দেশ প্রদান করেছেন। তা হলো মানুষকে আল্লাহ যে সম্পদ দিয়েছেন সে সম্পদের জাকাত আদায়ের নির্দেশ। আল্লাহ তাআলা মানুষকে জাকাত ছাড়া সাধারণ দানের ব্যাপারেও নসিহত করেছেন।জাকাত আদায় এবং সাধারণ দানের ব্যাপারে তাগিদ দেয়ার পেছনে রয়েছে বান্দার জন্য অনেক গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘হে ঈমানদারগণ! আমি যে রিজিক তোমাদেরকে প্রদান করেছি তা থেকে ব্যায় কর; সেদিন আসার আগে, যেদিন ক্রয়-বিক্রয় বন্ধ হয়ে যাবে এবং বন্ধুত্ব ও

Developed by Diligent InfoTech