স্ত্রীর সঙ্গে বন্ধুর পরকীয়ার সন্দেহ, অতঃপর...

  

পিএনএস ডেস্ক : ৩১ বছর বয়সী বাদল মণ্ডল ওরফে স্বপন সিংড়ার সঙ্গে কাজ করতেন বিপিন যোশি। হঠাৎ করেই বাদল সন্দেহ করতে থাকেন যে তাঁর স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়া করছেন বিপিন। সেই সন্দেহই কাল হলো। বন্ধু বিপিনকে খুন করে তাঁর দেহ কেটে টুকরো টুকরো করেন বাদল। তারপর তা ভরে রাখেন ফ্রিজে!

পিটিআইয়ের খবরে বলা হয়েছে, ভারতের দক্ষিণ দিল্লির মেরাউলিতে এ ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয় পুলিশ জানিয়েছে, বাদল মাংস কাটার ছুরি দিয়ে বিপিনের মাথা কেটে ফেলেছিলেন এবং নিজের ভাড়া করা ফ্ল্যাটের ফ্রিজে তাঁর শরীরের কাটা অংশগুলো ভরে রেখেছিলেন।

পুলিশের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, একটি রেস্তোরাঁয় কাজ করতেন বিপিন ও বাদল। ৯ অক্টোবর থেকে বিপিনকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। গত রোববার বাদলের বাসার ফ্রিজ থেকে বিপিনের টুকরো টুকরো লাশ পাওয়া যায়। এর তিন দিন পর ওডিশা থেকে বাদলকে গ্রেপ্তার করা হয়।

বাদল পুলিশকে জানান, তাঁর অনুপস্থিতিতে বিপিনকে বেশ কয়েকবার বাড়িতে যেতে দেখেছেন তিনি। নিজের স্ত্রীর সঙ্গে বিপিনের অবৈধ সম্পর্ক আছে বলে সন্দেহ করেন তিনি। সেই কারণেই বিপিনকে খুন করার ছক কষেন বাদল।

জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশ জানতে পারে, খুন করার কিছুদিন আগে রেস্তোরাঁ থেকে ছুটি নিয়েছিল বাদল। কেউ যেন খুনের জন্য বাদলকে সন্দেহ না করতে পারে, সে জন্যই পরিকল্পিতভাবে এই ছুটি নেওয়া হয়েছিল।

ঘটনার দিন বাদল বিপিনের সঙ্গে মদ্যপান করেন। তারপর বাদল তাঁকে খুন করেন। খুনের পর বাদল প্রথমে কলকাতায় পালিয়ে যান। দিল্লি পুলিশের একটি দল তাঁর মোবাইল ফোন ট্র্যাক করে পুরুলিয়া গ্রামে পৌঁছালেও সেখানে তাঁকে পাওয়া যায়নি। পরে ওডিশা থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়।

পিএনএস/জে এ /মোহন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech