ভারতে ভিন্ন ধর্মের মেয়েকে বিয়ে করায় কুপিয়ে পোড়ানো হল যুবককে! (ভিডিও)

  


পিএনএস ডেস্ক:প্রথমে লাঠি দিয়ে মার। পরে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথাড়ি কোপ। বেধড়ক মার খেয়ে তখন বাঁচার আবেদন জানানোর ক্ষমতাটুকুও ছিল না ভারতের মালদার বাসিন্দা বছর ৫০-এর ওই ব্যক্তির। ধুঁকছিলেন বটে, কিন্তু তখনও প্রাণ ছিল দেহে। সেটুকুও কেড়ে নিতে কেরোসিন ঢেলে দেশলাই জ্বালিয়ে জ্যান্ত পুড়িয়ে দেওয়া হল তাঁকে। তবু মৃতপ্রায় যুবককে বাঁচাতে এলেন না কেউ, বরং লেন্সবন্দি করা হল গোটা ঘটনার ভিডিও।

নারকীয়, বীভত্স, অমানবিক- যে কোনও বিশেষণই ক্ষুদ্র মনে হয় রাজস্থানের এই তথাকথিত লাভ জিহাদের ঘটনার 'শাস্তি প্রক্রিয়া' বর্ণনা করার ক্ষেত্রে। সভ্যতার উপর থেকে মনুষ্যত্বের প্রলেপটুকু উঠে গেলে প্রাগৈতিহাসিক যুগের যে গাঢ় অন্ধকার বেরিয়ে আসে, তারই সাক্ষী মালদা এবং রাজস্থানের মানুষ। সেই ঘটনার ভিডিও এখন ভাইরাল।

নেপথ্যের কাহিনী বলতে গেলে পিছিয়ে যেতে হবে কয়েকটা বছর। কাজের সূত্রে রাজস্থানে গিয়েছিলেন মালদার যুবক মহম্মদ আফরাজুল।

সেখানেই কাজ জুটিয়ে চলছিল দিন। কিন্তু রাজস্থানের মেয়ে রুমা রানির প্রেমে পড়ে যান তিনি। সেখান থেকে শুরু হয় সমস্যার সূত্রপাত। সমাজ, পরিবার, ধর্মকে উড়িয়ে তাঁদের ভালবাসা পরিণতি পায়। বিয়ে করেন দুজনে। কিন্তু শেষমেশ ভালবাসার 'অপরাধে' নিজের প্রাণটাই দিতে হল আফরাজুলকে।

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, পরনে লাল শার্ট, সাদা প্যান্ট, পায়ে সাদা স্নিকার- কার্যত কেতাদুরস্ত এক ব্যক্তির চরম হিংসার শিকার হয়েছেন আফরাজুল। প্রথমে তাঁকে কোপানো হয়। পরে মাটিতে ফেলে তাঁর গায়ে কেরোসিন ঢেলে জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। ভিডিওতে দেখতে পাওয়া লাল জামা পরিহিত ওই ব্যক্তিকে বলতেও শোনা যায়, এই কাজের জন্য ‘উচিত শিক্ষা' দেওয়া হয়েছে তাঁকে।

ভিডিও প্রকাশ্যে আসতেই ইন্টারনেটে নিন্দার ঝড় উঠেছে। গোটা ভারতে সমালোচনার বন্যা বইছে। এই যুগেও একজন ‘মানুষ’ কতটা পাশবিক হতে পারে, তারই যেন প্রমাণ মিলেছে গোটা ভিডিও জুড়ে।

বিজেপি শাসিত রাজ্যে গৈরিক বাহিনীর এমন তাণ্ডব দেখে কার্যত হতবাক গোটা ভারত। রাজস্থানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, দোষী শম্ভুলাল রেজারকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, ঘটনাস্থল থেকে একটি কুঠার এবং একটি স্কুটার উদ্ধার হয়েছে।

পিএনএস/আলআমীন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech