ফ্রান্সে ব্যাপক দাঙ্গা; আটক ৭ শতাধিক

  



পিএনএস ডেস্ক: রাজধানী প্যারিসসহ ফ্রান্সের বিভিন্ন স্থানে শনিবার ‘ইয়েলো ভেস্ট' পরা বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ কড়া ব্যবস্থা নিয়েছে। বিক্ষোভ চলাকালে বহু গাড়ি ভাঙচুর এবং দোকানপাট লুট করা হয়েছে। পরিস্থিতি মোকাবেলায় পুলিশ প্রচুর টিয়ারগ্যাস ছোঁড়ে এবং ৭শ’র বেশি বিক্ষোভকারীকে আটক করেছে।

দেশটির সরকার জ্বালানি তেলের উপর বাড়তি কর আরোপের পরিকল্পনা নেয়ায় চার সপ্তাহ আগে এই বিক্ষোভের সূচনা হয়। আন্দোলনকারীরা ‘ইয়েলো ভেস্ট' পরে রাস্তায় নেমে আসেন। তবে, বিক্ষোভের কারণে পরবর্তীতে বাড়তি কর প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিলেও তাতে এখন সন্তুষ্ট নন আন্দোলনকারীরা। বরং ফ্রান্সে জীবনযাপনের খরচ বেড়ে যাওয়া এবং দেশটির প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছেন তারা।

এদিকে চলমান বিক্ষোভ মোকাবেলার জন্য শনিবার সারা দেশে ৮৯ হাজার পুলিশ মোতায়েন করা হয়। এর মধ্যে শুধু প্যারিসেই মোতায়েন করা হয় ৮ হাজার পুলিশ। আন্দোলনকারীরা আগেই বিক্ষোভের ঘোষণা দেয়ায় রাজধানী প্যারিসের যাদুঘর, ডিপার্টমেন্টাল স্টোর এবং মেট্রো বন্ধ করে রাখা হয়। এতে করে প্যারিস এক ভুঁতুড়ে শহরে পরিণত হয়।

দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ল্যঁ রন নিউনিয়েন্স জানিয়েছেন, শনিবার ফ্রান্স জুড়ে সরকারবিরোধী বিক্ষোভে অংশ নিয়েছেন ৩১ হাজারের মতো ‘ইয়েলো ভেস্ট' প্রতিবাদকারী। ফ্রান্স টু টেলিভিশনকে তিনি বলেন, ‘জাতীয় পর্যায়ে প্যারিসসহ বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ৭শ’র বেশি বিক্ষোভকারীকে আটক করা হয়েছে। আর সারা দেশে যে ৩১ হাজারের মতো মানুষ বিক্ষোভে অংশ নিয়েছেন, তাদের মধ্যে ৮হাজার ১০০ জন প্যারিসে রয়েছেন।’

প্যারিসে বিক্ষোভে অংশ নেয়া চার সন্তানের জননী মিরিয়াম ডিয়াস শনিবার বার্তাসংস্থা এপিকে বলেন, ‘আমরা আমাদের অসন্তোষের কথা ম্যাক্রোঁকে জানাতে এখানে এসেছি। তবে আমি কোনকিছু ভাঙার জন্য আসিনি। কারণ আমার চারটা সন্তান রয়েছে। আমি তাদের জন্য নিজেকে নিরাপদে রাখার চেষ্টা করছি, কেননা তারা আমার ব্যাপারে ভীত।’

পিএনএস/হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech