খাশোগি হত্যার প্রতিবেদন প্রকাশ করবে বাইডেন প্রশাসন

  

পিএনএস ডেস্ক : সৌদি আরবের ভিন্ন মতাবলম্বী সাংবাদিক জামাল খাশোগির হত্যাকাণ্ডের ঘটনা বিশ্বের আলোচিত ঘটনাগুলোর একটি। ওই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবেদন এখনও প্রকাশ হয়নি।

বুধবার (২০ জানুয়ারি) পরবর্তী মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ গ্রহণ করবেন জো বাইডেন। তার শপথের আগেই তার মনোনীত এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বাইডেন প্রশাসন খাশোগি হত্যার প্রতিবেদন প্রকাশ করবে।

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা এনআইএ’র পরবর্তী পরিচালক হিসেবে এভ্রিল হেইনেসকে বাছাই করেছেন বাইডেন। গোয়েন্দা সংস্থার সম্ভাব্য এই পরিচালক জামাল খাশোগি হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে মার্কিন গোয়েন্দাদের প্রতিবেদন প্রকাশের ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন।

মঙ্গলবার সিনেটের অধিবেশন চলাকালীন সিনেটর রন ওয়াইডেন এভ্রিল হেইনেসকে বলেন, বিদায়ী প্রশাসনের অত্যধিক গোপনীয়তা ও অনাচারের বিষয়গুলো উন্মোচনের সুযোগ আপনার হাতে রয়েছে।

হেইনেসকে জিজ্ঞাসা করা হয়, তিনি যদি নিশ্চিত হন তবে খাশোগি হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দাদের প্রতিবেদন প্রকাশ করবেন কি না। তিনি উত্তর দেন, হ্যাঁ সিনেটর, অবশ্যই আমি আইন অনুসরণ করব।

যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেস ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে একটি প্রতিরক্ষা বিল পাস করে। ওই বিলটিতে খাশোগি হত্যার গোপন প্রতিবেদন জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থাকে ৩০ দিনের মধ্যে জমা দেয়ার বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত ছিল।

২০১৮ সালের অক্টোবরে ওয়াশিংটন পোস্টের কলামিস্ট এবং সৌদি সরকারের সমালোচক খাশোগিকে ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে সৌদি এজেন্টদের একটি দল নৃশংসভাবে হত্যা করে। তিনি দ্বিতীয় বিয়ে করার উদ্দেশ্যে প্রয়োজনীয় কিছু নথিপত্রের জন্য সেখানে গিয়েছিলেন।

জাতিসংঘ ও মানবাধিকার সংগঠনগুলো এই হত্যাকাণ্ডের নিন্দা করে আসছে। মার্কিন আইন প্রণেতারাও এই হত্যাকাণ্ডের পেছনে দায়ী কে তা খতিয়ে দেখতে ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসনের কাছে আহ্বান জানিয়েছে। ২০১৮ সালের নভেম্বরে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে বলা হয়, সিআইএর তদন্ত-প্রতিবেদনে উঠে এসেছে যে, সৌদি ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান এই হত্যার আদেশ দিয়েছেন।

কিন্তু ক্রাউন প্রিন্স বরাবরই এই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন। ট্রাম্প প্রশাসন খাশোগির হত্যার বিষয়ে সৌদি আরবের কাছে জবাব চেয়েছিল ঠিকই, কিন্তু সৌদি আরব ও ক্রাউন প্রিন্সের প্রতি সমর্থন অব্যাহত ছিল।

পিএনএস/এসআইআর

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন