মুশতাকের মৃত্যুর বিষয়টি হলফনামা আকারে জানানোর নির্দেশ হাইকোর্টের

  




পিএনএস ডেস্ক: গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় বন্দি থাকা অবস্থায় লেখক মুশতাক আহমেদের (৫৩) মৃত্যুর ঘটনা লিখিতভাবে উচ্চ আদালতকে জানাতে করতে হবে।

সোমবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চে এ মামলার অপর আসামি কার্টুনিস্ট আহমেদ কবীর কিশোরসহ মোশতাক আহমেদের জামিন আবেদন শুনানির জন্য কার্যতালিকায় ছিল।

শুনানিতে আবেদনকারীদের আইনজীবী ব্যারিস্টার জ্যোর্তিময় বড়ুয়া বলেন, ‘তিনি মৃত্যুবরণ করেছেন।’ তখন আদালত বলেন, ‘সেটি আপনি হলফনামা আকারে জানান। তখন তার জামিন আবেদন অ্যাবেট (বাদ) করা হবে।’

জবাবে ব্যারিস্টার জ্যোর্তিময় বড়ুয়া জানান, কালকের মধ্যে হলফনামা আকারে জমা দিতে পারবেন।

এরপর আদালতে কার্টুনিস্ট আহমেদ কবীর কিশোরের জামিন আবেদনের ওপর শুনানি করেন জ্যোর্তিময় বড়ুয়া। তার শুনানির পর আদালত এ বিষয়ে বুধবার (৩ মার্চ) জবাব দেওয়ার জন্য রাষ্ট্রপক্ষকে বলেছেন। একইসঙ্গে ওইদিন আদেশের জন্য দিন রেখেছেন।

গত ২৫ ফেব্রুয়ারি বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ৮টার দিকে অসুস্থ অবস্থায় হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মুশতাক আহমেদকে মৃত ঘোষণা করেন।

মুশতাক নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার থানার ছোট বালাপুর এলাকার মো. আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে।

ওইদিন কাশিমপুর হাই-সিকিউরিটি কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার মো. গিয়াস উদ্দিন বলেন, ‘সন্ধ্যায় কারাগারের ভেতর হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন মুশতাক আহমেদ। এ সময় তাকে কারা হাসপাতালে নেওয়া হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে তাকে মৃত ঘোষণা করেন।’

পিএনএস/এএইচ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন