পাঠকের চিঠি

করোনার প্রাদুর্ভাব ও আমাদের মনোজগতের পরিবর্তন

  

পিএনএস(এম এ হাসান) : করোনা বা কোভিট-১৯ বর্তমান সময়ে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়া একটি ভাইরাসের নাম। গত বছরের ডিসেম্বর মাসে এটি চীনের হুবেই প্রদেশের উহানে এক ব্যক্তির শরীরে ধরা পড়ে। পরবর্তীতে এটি এক ব্যক্তি থেকে অন্য ব্যক্তির দেহে ছড়িয়ে পড়ে। প্রায় তিন মাস করোনার সাথে যুদ্ধ করে চীন এখন কিছুটা স্থিতিশীল হয়েছে। সম্পূর্ণ অপরিচিত, অজানা একটি ভাইরাসের সাথে চীনের মত সমৃদ্ধশালী একটা দেশের পেরে উঠতে অনেক বেগ পেতে হয়েছে। ইতোমধ্যে এ ভাইরাস সম্পর্কে যা জানা গেছে তা হলো- এটি খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে এক জনের থেকে

করোনার দুটি কুসন্তান

  

পিএনএস (হেলাল মহিউদ্দীন) : জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস দারুণ দুশ্চিন্তাগ্রস্ত। কারণ, করোনা ঘরে ঘরে নারী ও শিশুদের প্রতি সহিংসতা বেশুমার ও বেসামাল করে তুলছে। কপালে গভীর চিন্তার রেখা ফুটিয়ে তিনি জানালেন যে করোনার দুঃসময়ে পৃথিবীর প্রতিটি দেশ থেকে পারিবারিক সহিংসতার খবর আসছে। ঘরের খবর পরে কি আর তেমন জানে? পরিবারের চরিত্রই এমন যে অন্দরমহলের অধিকাংশ খবর অন্দরমহলেই মিলিয়ে যায়। ‘সেইফ হরাইজন’ নামের একটি এনজিও সহিংসতার শিকার নারীদের সহায়তা দিয়ে থাকে। সংস্থাটি জানিয়েছে, বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই সহিংসতার

গার্মেন্টসকর্মীরা কী করোনাজয়ী, নাকি নীতি নির্ধারকরা ঘুমে!

  

পিএনএস (শাহাবুদ্দিন শুভ) : “গার্মেন্টসকর্মীরা কী করোনাজয়ী?’’ এই প্রশ্নটি আমার মাথায়ও ঘুরপাক খাচ্ছে । কেনইবা এতগুলো লোককে শহর ছেড়ে গ্রামে যেতে দেওয়া হলো। আবার কেনইবা তাদের ১১ তারিখের আগে ঢাকায় ফিরিয়ে আনা হচ্ছে। তাহলে কি আমরা ধরে নিব সমাজে যারা খেটে খাওয়া মানুষ, যাদের রক্তের ঘামে উপর ভর করে দাড়িয়ে আছে আমাদের উচ্চবিত্ত সমাজ। দেশের জন্য যারা নীতি বানান, যাদের শ্রমের টাকায় তাদের বেতন হয় সেই সব লোক এসব সাধারণ মানুষদের নিয়ে চিন্তার সময় নেই!অথচ করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারের নির্দেশে আর সব

করোনা প্রতিরোধে এ কেমন আচরণ

  

পিএনএস (মোহাম্মদ হানিফ, দক্ষিণ কোরিয়া থেকে) : করোনাভাইরাসের এমন ভয়ংকর থাবায় থমকে গেছে গোটা পৃথিবী। থমকে গেছে প্রিয় মাতৃভূমি। এত সহজেই মানুষের দৈনন্দিন জীবনযাপনের চিত্র ভিন্নরূপ নেবে, যা আমরা কখনো কল্পনাই করতে পারিনি। কোভিড-১৯ প্রতিরোধ করার জন্য বিশ্বের অনেক দেশে সচেতনতার পাশাপাশি বিভিন্ন পদক্ষেপ নিলেও আমাদের দেশে কিছু ব্যতিক্রম নিয়ম বরাবরই চালু থাকে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাসহ চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা একমত ভয়াবহ ছোঁয়াচে এই ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বাঁচার এখন পর্যন্ত একমাত্র উপায় হোম বা সেলফ

প্রবাসী বাংলাদেশিদের কারণে কী বিশ্বের অন্যান্য ১৮০ দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঘটেছে?

  

পিএনএস(এম এম শাহীন) : নির্মমতা নয়, প্রবাসীদের প্রতি সদয় হোনদেশের যেকোনো দুর্যোগ-দুর্বিপাকে সবার আগে বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দেন প্রবাসীরা। নানা প্রয়োজনে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে লাখ লাখ প্রবাসী বাংলাদেশি বসবাস করলেও তাদের মনপ্রাণ সর্বদা পড়ে থাকে দেশের মাটিতে। দেশ ও দেশের মানুষের প্রতি তাদের হৃদয়ের টান অগাধ ও অকৃত্রিম। বাংলাদেশের যেকোনো সাফল্যে তারা যেমন গর্ব করেন, তেমনি যেকোনো বিপদ-আপদে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা প্রকাশ করেন। প্রবাসীরা দেশের রেমিট্যান্স যোদ্ধা। তাদের ঘাম আর শ্রমের বিনিময়ে দেশের

আমি নবাবজাদা

  

পিএনএস(মোহাম্মদ হানিফ, দক্ষিণ কোরিয়া থেকে) : কালের পরিক্রমায় আলোচনা-সমালোচনায় আসেন প্রবাসীরা। তবে সব সময় প্রবাসীদের আলোচনার চেয়ে সমালোচনার পাল্লাটাই অনেক ভারী। প্রবাসীদের বাস্তবতার বিশ্লেষণ পুরোটাই ভিন্ন।বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। কথাটা সত্যি, কিন্তু এর সিংহভাগ চালিকা শক্তি কাদের হাতে, তা আমরা ভুলে যাই। ভুলে যাই ভূতপূর্বকাল। আজ হঠাৎ দেখি অনেক প্রবাসীদের ফেসবুক ওয়ালে নবাবজাদা নিয়ে অনেক স্ট্যাটাস, অনেকেই লিখেছেন, ‘আমি নবাবজাদা’।এর কারণ ইতিমধ্যেই আমাদের কাছে স্পষ্ট।

কঠিন সময় পার করছেন গণমাধ্যমকর্মীরা

  

পিএনএস (সেলিম আহমেদ) : বাংলাদেশের গণমাধ্যম এক কঠিন সময় অতিক্রম করছে। ভালো নেই দেশের অধিকাংশ গণমাধ্যম ও গণমাধ্যমকর্মীরা। রাজধানী থেকে শুরু করে মফস্বল, সব জায়গায় একই অবস্থা। একদিকে নেই চাকরি আর বেতন-ভাতার নিশ্চয়তা। অন্যদিকে নেই নিরাপত্তা। সঠিক খবর তুলে ধরলেই নেমে আসে নির্যাতনের স্ট্রিমরোলার। হামলা, মামলা দিয়ে হয়রানি এমনকি খুনও করা হয় সাংবাদিককে।সম্প্রতি গণমাধ্যমে প্রকাশিত এক তথ্য অনুযায়ী, সংবাদ প্রকাশের জের ধরে ২০০৯ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত গত ১০ বছরে বাংলাদেশে ৩৬ জন সাংবাদিককে হত্যা করা

সুজলা সুফলা শস্য শ্যামলা বাংলাদেশে সবই সম্ভব

  

পিএনএস ডেস্ক: মনটা বেশি ভালো না। কারণ চারিদিকে যে সব ঘটছে মন ভালো রাখা বেশ কঠিন হয়ে পড়েছে। যে সব ঘটনা ঘটে চলছে যা সত্যি অবিশ্বাস্য। এ কারণে মনের ওপর চাপ সৃষ্টি হচ্ছে। বাংলাদেশের হাসপাতালের সামনে ফুলগাছ লাগাতে খরচ হয় লক্ষ টাকা।কলাগাছের দাম লক্ষ টাকা, নারিকেল গাছের দাম প্রায় কোটি টাকা হঠাৎ শুনব তাল গাছের দাম কোটি টাকা। সচেতন নাগরিক হিসেবে মনে ভাবনা আসতেই পারে, আহারে! দেশের মানুষ যেন মানুষ তো নয় মনে হচ্ছে এসব কাজ যারা করছে তারা সবগুলোই দানব। দেশ চোরের খনি না পেলেও ডাকাতের খনি পেয়েছে। আমার

‘নারী ও মা থেকে দেশনেত্রী’

  

পিএনএস (মিনহাজ আহমেদ প্রিন্স) : নারী শব্দটি সামনে পড়লেই সর্বপ্রথম যে বিষয়টি অন্তস্থ হয় তা হচ্ছে মা’। আবার এই নারীই হচ্ছে বোন, ভগ্নি কিংবা প্রিয়তমা সহযাত্রী বা প্রেরণার প্রেয়সী। আমাদের মতো উন্নয়নশীল ও কিছুটা রক্ষণশীল দেশে যেখানে মৌলিক চাহিদা পূর্ণ করাই সর্বাগ্রে সেখানে নারীকে বিশেষ বিবেচনা প্রদান কিংবা নারীর ক্ষমতায়ন অনেকটাই কল্পনাতীত। তবে হ্যাঁ, এতোদসত্ত্বেও নারীকে সম্মান, মর্যাদা ও ক্ষমতায়নের বিশেষ গুরুত্বটি সামনে আনতে পারাটাই সমাজ-সভ্যতা-সংস্কৃতির সুরুচি ও অগ্রগতির পরিচায়ক। কেননা জাতীয় কবি

কে শ্রেষ্ঠ, নারী না পুরুষ?

  

পিএনএস : আসলে নারী আর পুরুষ নিয়ে এই সমাজের বিতর্কটা একটা মূর্খতা ছাড়া আর কিছু না। এখানে দুজনই যার যার অবস্থানের দিক থেকে শ্রেষ্ঠ। নারীর শ্রেষ্ঠত্বের অবস্থানে পুরুষের অবস্থান শূন্যের কোঠায় আবার পুরুষের শ্রেষ্ঠত্বের স্থানে নারীর অবস্থান শূন্যের কোঠায়। তাহলে দাঁড়ালো নারী আর পুরুষ একে অন্যের পরিপূরক। যে মানুষের ছোট বেলা থেকে বাবা নেই বা বাবার আদর থেকে যে বঞ্চিত, সে মানুষটিকে তার মা যতোই আদর, ভালোবাসা, শাসন দিয়ে রাখুক না কেন সেই কেবল জানে তার বাবার ভালোবাসা, আদর বা শাসনের শুণ্যতা কতটুকু নিয়ে বেঁচে