দিল্লির হাসপাতালে ভর্তি মিঠুন

  


পিএনএস ডেস্ক: দিল্লির হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জয়ী জনপ্রিয় অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী। পরিবার ও স্বজনদের বরাত দিয়ে গণমাধ্যমের খবরে জানানো হয়েছে, দিল্লিতে চিকৎসায় তিনি সাড়া পাচ্ছেন।

জানা গেছে, মিঠুন চক্রবর্তী অনেক দিন ধরেই পিঠের ব্যথায় ভুগছেন। ২০০৯ সালে ‘লাক’ ছবির একটি অ্যাকশন দৃশ্যে অভিনয় করতে গিয়ে পিঠে মারাত্মক ব্যথা পান তিনি। সেই দৃশ্যে মোটরসাইকেল থেকে মিঠুনের লাফ দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সময়ের একটু এদিক-ওদিক হওয়ায় তিনি লাফ দিতে গিয়ে পড়ে যান। এরপর থেকে পিঠে প্রচণ্ড ব্যথায় যন্ত্রণা পাচ্ছেন মিঠুন। মাঝে অবশ্য কিছুটা সুস্থ হয়েছিলেন। কিন্তু ইদানীং পিঠের ব্যথা তাকে খুবই ভোগাচ্ছে।

বেশ কিছুদিন ধরেই মিঠুন চলচ্চিত্র থেকে দূরে সরে রয়েছেন। ছোট পর্দাছও তাকে সেভাবে দেখা যাচ্ছিল না। রাজনীতির জগত থেকেও নিজেকে সরিয়ে নিয়েছিলেন। সবার অলক্ষ্যে একান্তে সময় কাটাচ্ছিলেন। বড় পর্দায় আর আগের মতো সময় দিতে পারেন না মিঠুন। তবে ছোট পর্দার কয়েকটি অনুষ্ঠানে নিয়মিত বিচারক ও উপস্থাপকের দায়িত্ব পালন করেছেন। অনেক বছর ধরে তিনি ভারতের জি নেটওয়ার্কের জনপ্রিয় নাচের অনুষ্ঠান ‘ড্যান্স ইন্ডিয়া ড্যান্স’-এর গ্র্যান্ড মাস্টার হয়ে আসছেন।

এছাড়া কলকাতার চ্যানেল জি বাংলায় ‘দাদাগিরি’ উপস্থাপনা করেছেন মিঠুন। কিন্তু পিঠের চোটে কাবু হওয়ায় কাজ থেকে সাময়িক বিরতি নেন। রাজ্যসভা থেকেও বিরতি নিতে হয়। বছর খানেক গণমাধ্যমে কোনো কাজ করেননি। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসে চিকিৎসা করতে যান এই অভিনেতা। সেখান থেকে ফিরে আবার ভারতের উটিতে তার বাড়ি পুনরুদ্ধারে নেমে পড়েন। মিঠুনের এই বাড়ি নিয়ে অনেক দিন ধরেই ঝামেলা চলছিল।

তিনবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জয়ী এই অভিনেতা ‘ডিস্কো ড্যান্সার’, ‘হাম সে হ্যাঁয় জমানা’, ‘গুলামি’, ‘বাদল’, ‘আম্মা’, ‘গুরু’, ‘গোলমাল থ্রি’, ‘অগ্নিপথ’, ‘বাঙালি বাবু’, ‘রাস্তা’, ‘নোবেল চোর’, ‘লে হালুয়া’সহ অসংখ্য চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। ৬৫ বছর বয়সী এই অভিনেতাকে সর্বশেষ দেখা গেছে বলিউডের ‘হাওয়াইজাদা’ ছবিতে। এই ছবিতে আরও ছিলেন আয়ুষ্মান খুরানা ও পল্লবী শ্রদ্ধা।

বলিউডের একসময়ের ডিস্কো ড্যান্সার মিঠুন চক্রবর্তীর জন্যে পাগল ছিল কিশোরী থেকে বৃদ্ধা সকলেই। তার সঙ্গে নাম জড়িয়েছিল প্রয়াত অভিনেত্রী শ্রীদেবীর। একটা সময় একের পর এক সম্পর্কে জড়িয়েছেন তিনি। তবে যোগিতা বালিকে বিয়ে করার পর অনেকটাই থিতু হয়েছেন। তার দুই ছেলে। এছাড়া দত্তক নিয়েছেন একটি মেয়েকে। মিঠুনের আসল নাম গৌরাঙ্গ চক্রবর্তী। চলচ্চিত্রে এসে তিনি মিঠুন চক্রবর্তী নামে পরিচিতি পান। তাকে কলেজে সবাই ডাকতেন মিষ্টিদা বলে।

কিন্তু মিষ্টি হাসির এই ছেলেকে বলিউডের অনেক পরিচালকের দরজা থেকে ফেরত আসতে হয়েছে তাঁর কৃষ্ণবর্ণের কারণে। দারোয়ানের ঘাড়ধাক্কা খাওয়ার মতো অভিজ্ঞতা পর্যন্ত আছে তার। অথচ গত শতকের আশির দশকে সবচেয়ে বেশি ছবিতে অভিনয় করার রেকর্ড এই মিঠুন চক্রবর্তীর দখলে। বাঙালি পরিচালক মৃণাল সেনের চলচ্চিত্র ‘মৃগয়া’তে প্রথম অভিনয় করে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান মিঠুন। এরপর বলিউডের নির্মাতারাও তাকে নিয়ে ভাবতে শুরু করেন। এখন তিনি সবার প্রিয় দাদা। তবে এই পর্যায়ে আসতে মিঠুনকে অনেক চড়াই-উতরাই আর অবজ্ঞার শিকার হতে হয়েছে।

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech