শীতে ঠাণ্ডা পানিতে গোসল, যেসব রোগের সমাধান!

  

পিএনএস ডেস্ক: কনকনে শীতে জনজীবন বিপর্যস্ত। এই ঠাণ্ডা আবহাওয়াই যেখানে বাইরে বের হওয়ারই জোঁ নেই, সেখানে গোসলের কথা তো কেউ চিন্তাই করতে পারে না।

আবার দীর্ঘদিন গোসল না করলেও শরীরে চর্মরোগ বাসা বাঁধবে। তাইতো সবাই গরম পানিতেই গা ভিজিয়ে থাকেন শীতকালে। তাতে উপকারের চেয়ে অপকারিতাই বেশি! জানেন কি? শীতে ঠাণ্ডা পানিতে গোসলের উপকারিতা অনেক। ভাবছেন, এই শীতে ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করবেন কীভাবে? স্বাস্থ্যের কথা চিন্তা করে শীতের ভয়কে জয় করুন। এতে লাভবান হবেন আপনিই।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গোসল শুধু পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার বিষয় নয়। এর মাধ্যমে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিসহ নানা উপকারিতা পাওয়া যায়। আর এজন্য প্রয়োজন ঠাণ্ডা পানিতে গোসল। তবে আবহাওয়া যদি ঠাণ্ডা হয় তাহলে আপনি কি ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করে ঠাণ্ডা রোগে আক্রান্ত হতে পারেন?

এ প্রসঙ্গে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আপনার যে একেবারেই ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করতে হবে, এমন কোনো কথা নেই। এক্ষেত্রে প্রথমে কিছুটা ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করতে হবে। পরবর্তীতে আপনার অভ্যাস হলে তখন আরো বেশি ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করতে পারেন। এছাড়া অসুবিধা হলে গোসলের প্রথম অবস্থায় হালকা গরম পানিতে গোসল করার পর শেষ ১০ সেকেন্ড ঠাণ্ডা পানিতে দেহ ভিজিয়ে নিলেও উপকার পাওয়া যাবে।

ঠাণ্ডা পানিতে গোসল
ঠাণ্ডা পানিতে গোসল

অনেকেই ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করতে চান না- প্রয়োজন হয় উষ্ণ পানির। যদিও ঠাণ্ডা পানিতে গোসলের উপকারের বিষয়টি জেনে রাখলে আপনিও এ কাজে আগ্রহী হয়ে উঠবেন। এবার তবে জেনে নিন কোন কোন উপকার মিলবে-

১. ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করলে শরীরে রক্ত সঞ্চালন বাড়ে। যার ফলে বিভিন্ন অঙ্গ প্রত্যঙ্গ শরীর গরম রাখতে সাহায্য করে। অন্যদিকে, গরম পানিতে গোসল রক্ত সঞ্চালনে বাধা দেয়। এতে শীত আরো বেশি অনুভূত হয়। ঠাণ্ডা পানিতে গোসলের ফলে ধমনীগুলো আরো শক্তিশালী হয়ে রক্তচাপ হ্রাস করে।

২. চুল ও ত্বক ভালো রাখতেও ঠাণ্ডা পানিতে গোসলের উপকারিতা অনেক। এতে ত্বকের রুক্ষতা ও র‌্যাশ দূর হয়। ঠাণ্ডা পানি ত্বকের লোমকূপগুলোকে আরো টানটান করে। এছাড়াও ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করলে চুল ঝলমলে ও ত্বক গভীরভাবে পরিষ্কার হয়ে থাকে।

৩. বিভিন্ন গবেষণায় দেখা যায়, যারা শীতেও নিয়মিত ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করে তাদের শরীরের শ্বেত রক্তকণিকার সংখ্যা বেড়ে যায় এবং বিপাক ক্রিয়ার উন্নতি ঘটে। এতে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যায়।

৪. পেশির উন্নতিতে সাহায্য করে ঠাণ্ডা পানি। এজন্য খেলোয়াড়রা সবসময় ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করে থাকেন। যেকোনো খেলা বা শরীরচর্চার পর পেশির ব্যথা দূর করতে ঠাণ্ডা পানিতে গোসল যেন একটি অব্যর্থ দাওয়াই।

৫. শীতকালে যখন ঠাণ্ডা পানিতে গা ভেজাবেন ততক্ষণাৎ আপনার হার্টবিটও বেড়ে যাবে। অর্থ্যাৎ ঠাণ্ডা পানির প্রতিক্রিয়া হিসেবে যে গভীর শ্বাস-প্রশ্বাস ঘটে তা আমাদের শরীরে অক্সিজেন গ্রহণ বাড়িয়ে তোলে। এতে শরীর আরো দ্রুত গরম হয় ও শক্তি সঞ্চার করে।

শীতেও নিয়মিত ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করুন
শীতেও নিয়মিত ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করুন

৬. ঠাণ্ডা পানিতে গোসলের ফলে মন ভালো হয়। কারণ এতে দেহের অ্যানার্জি বৃদ্ধি পায় এবং বিষন্নতা দূর হয়।

৭. পুরুষের শুক্রাণু বৃদ্ধি পায় ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করলে। কারণ ঠাণ্ডা তাপমাত্রায় শুক্রাণু দ্রুত পরিপূর্ণতা পায়। আর গরম পানি শুক্রাণু বৃদ্ধিকে বাধাগ্রস্ত করে।

৮. আপনি মুহুর্তেই চাঙা হয়ে উঠবেন ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করলে। যাদের ঘুমের সমস্যা হয় তারা অনিদ্রা থেকে মুক্তি পাবেন।

৯. ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করলে ওজনও কমে। অবাক হচ্ছেন? এর ফলে দেহ ঠাণ্ডা হওয়ায় আবার আগের তাপমাত্রায় ফেরানোর জন্য দেহের ক্যালোরি ব্যবহারের প্রয়োজন হয়। আর ক্যালোরি ব্যবহারের ফলে দেহের ওজন হ্রাস পায়।

১০. নিয়মিত শরীরে তেল ম্যাসেজ করে আধা ঘণ্টা পর গোসল করার অভ্যেস করুন।

সতর্কতা: ঠাণ্ডা পানিতে গোসলের বহুবিদ উপকার রয়েছে। তবে যাদের হার্টের সমস্যা রয়েছে, উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন এবং প্রচণ্ড জ্বরে আক্রান্ত তারা ভুলেও শীতকালে ঠাণ্ডা পানিতে গোসল করবেন না।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech