রোহিঙ্গারা এবার আক্রান্ত হচ্ছে রোগব্যাধিতে

  

পিএনএস ডেস্ক: বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা ডাইরিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছেন বলে জানা যাচ্ছে। শিশুদের চর্মরোগ ও নিউমোনিয়া হওয়ার খবর পাওয়া যাচ্ছে।

মিয়ানমারে সাম্প্রতিক সহিংসতা শুরু হওয়ার পর বাংলাদেশে চার লাখের বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থী প্রবেশ করেছে বলছে জাতিসংঘ। এখনো সীমান্তে আসছে অনেক রোহিঙ্গা। টেকনাফ ও উখিয়ার রাস্তাঘাট সহ বিভিন্ন এলাকায় তারা অবস্থান করছেন।

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের স্বাস্থ্যসেবার বিষয়ে জানতে চাইলে সহকারী সিভিল সার্জন ডা. মহিউদ্দিন মোহাম্মদ আলমগীর বিবিসিকে বলেন শুরুতে প্রস্তুতি কম থাকলেও শেষ পর্যন্ত তারা যথাযথ ব্যবস্থা নিতে পেরেছেন।

তিনি বলেন, "এটা সত্যি যে শুরুতে আমাদেরও প্রস্তুতি ছিলোনা। কিন্তু ব্যাপক শরণার্থী আসার পরপরই আমরা একটা পর্যালোচনা করি এবং কিছু প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নিতে শুরু করি"।

তিনি বলেন বিশেষ করে পর্যাপ্ত বিশুদ্ধ পানি, স্বাস্থ্যসম্মত সেনেটারির মতো ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এজন্য উখিয়া ও টেকনাফে কিছু মেডিকেল টীমও গঠন করে দেয়া হয়েছে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর সমন্বয়ে।

সিভিল সার্জন অফিসের তথ্য অনুযায়ী এ পর্যন্ত প্রায় ৫ লাখ পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট বিতরণ করা হয়েছে এবং এর প্রতিটি দিয়ে ২০ লিটার পানি বিশুদ্ধ করা সম্ভব।

ডায়রিয়া প্রতিরোধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ১ লাখ ১৩ হাজার শিশুকে ভ্যাকসিন দেয়ার লক্ষ্য ঠিক করা হয়েছে বলেন জানান সহকারী সিভিল সার্জন।
তিনি জানান মূলত ডায়রিয়া, চর্মরোগ, নিউমোনিয়া আর চোখের প্রদাহতে ভুগছেন অনেক রোহিঙ্গা। সাথে রয়েছে গুলিতে আহতরা।

বাংলাদেশে এসে স্বাস্থ্যসেবা পেয়েছে প্রায় এক হাজার প্রসূতি রোহিঙ্গা নারী।

ডা. মহিউদ্দিন মোহাম্মদ আলমগীর পর্যাপ্ত ঔষধ চলে এসেছে সরকারের তরফ থেকে।

কুতুপালংয়ে স্যাটেলাইট ক্লিনিকে অনেক রোহিঙ্গাকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে আর এ মূহুর্তে সদর হাসপাতালেও সাতশর মতো রোহিঙ্গা রোগী ভর্তি আছে বলে জানান তিনি।


মুসলিমদের সাথে কথা বলতে চান অং সান সু চি
মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চি বলেছেন, মুসলিমরা কেন চলে যাচ্ছে সেটি খুঁজে বের করার জন্য তিনি তাদের সাথে কথা বলতে চান।

রাখাইন রাজ্যে সহিংসতার জন্য যারা দায়ী তাদের আইনের আওতায় আনা হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

গত ২৫ আগস্ট নতুন করে রোহিঙ্গা সংকট শুরুর পর জাতির উদ্দেশ্যে এটাই ছিল মিজ সু চি'র প্রথম ভাষণ।

মিজ সু চি তাঁর ভাষণে সকল মানবাধিকার লঙ্ঘনের নিন্দা জানিয়েছেন।

মিজ সু চি'র এ ভাষণ নিয়ে বিশ্ব নেতাদের মাঝে প্রবল আগ্রহ ছিল। মিয়ানমারের নেত্রী বলেছেন, পরিস্থিতি নিয়ে তারা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের পর্যবেক্ষণে ভীত নন। রাখাইন অঞ্চলে সংঘাতের নিরসনের জন্য একটি টেকসই সমাধানের উপর জোর দেন মিজ সু চি।

টেলিভিশন ভাষণে তিনি বলেন, " বেশ কিছু মুসলিম বাংলাদেশে পালিয়ে গেছে- এ ধরনের খবর শুনে আমরা উদ্বিগ্ন।"

কয়েকদিন আগে জাতিসংঘের মহাসচিব বিবিসির সাথে এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, সেনাবাহিনীর অভিযান বন্ধ করে শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য মঙ্গলবার জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ হবে মিজ সু চি'র জন্য শেষ সুযোগ।

কিন্তু এ 'শেষ সুযোগ' বলতে কী বোঝানো হচ্ছে সেটি ব্যাখ্যা করেননি জাতিসংঘের মহাসচিব।

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর উপর অস্ত্র বিক্রিসহ কয়েকটি ক্ষেত্রে অবরোধ আরোপের জন্য জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের প্রতি আহবান জানিয়েছে।

এমন প্রেক্ষাপটে মিজ সু চি'র এ ভাষণে নতুন কিছু আসে কি না সেদিকে অনেকের নজর ছিল।

বাংলাদেশের নোবেল বিজয়ী অধ্যাপক মুহাম্মদ ইউনুস কয়েকদিন আগে বিবিসি'র সাথে এক সাক্ষাৎকারে বলেন, রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের চাবিকাঠি অং সান সু চি'র হাতেই রয়েছে। সেজন্য মিজ সু চি-কে তাঁর পুরনো ভূমিকায় ফিরে যেতে হবে।

অধ্যাপক ইউনুস বলেন, মিজ সু চি তাঁর পুরনো ভূমিকায় ফিরে যাবেন, নাকি বর্তমানে যে ভূমিকা পালন করছেন সেটি চালিয়ে যাবেন, সে সিদ্ধান্ত তাকে নিতে হবে।

গত তিন সপ্তাহে মিয়ানমারের রাখাইন অঞ্চল থেকে পালিয়ে প্রায় চার লক্ষ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে।

এই ভাষণের মাধ্যমে চলমান সংকটের সমাধান আনার জন্যে চাপ সু চি'র উপর চাপ তৈরি হয়েছিল বিশ্বজুড়ে।

এদিকে, সেনাবাহিনীকে নিয়ন্ত্রণ করে অং সান সু চিকে নিজের নেতৃত্ব প্রমাণের আহ্বান জানিয়েছিল ফ্রান্স ও ব্রিটেন।

অগাস্ট মাসের ২৫ তারিখে মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর কিছু চৌকিতে হামলার পর রোহিঙ্গা মুসলমানদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। নিরাপত্তা বাহিনীর উপর সে হামলার জন্য রোহিঙ্গাদের সশস্ত্র গ্রুপকে দায়ী করে দেশটির সরকার।

রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর মিয়ানমারের সেনাবাহিনী যেভাবে দমন-পীড়ন চালাচ্ছে সেটিকে 'জাতিগত নির্মূলের' সাথে তুলনা করেছে জাতিসংঘ।

জাতিসংঘে চলমান সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দেননি মিজ সু চি। তিনি বলেছিলেন, অধিবেশনে যোগ না দিয়ে মিয়ানমারে ভাষণ দেবেন।

কয়েকদিন আগে মিয়ানমারের শীর্ষ সেনা কর্মকর্তা জেনারেল মিন অং হাইং রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হবার জন্য মিয়ানমারের ভেতরে সবাইকে আহবান জানিয়েছেন। সেনাবাহিনী মনে করে, রাখাইন অঞ্চলে রোহিঙ্গারা একটি শক্ত ঘাটি গড়ে তুলতে চাইছে। যদিও মিয়ানমারে রোহিঙ্গা শব্দটি ব্যবহার করা হয়না। সেনাবাহিনী এবং সরকার রোহিঙ্গাদের 'বাঙালী' মনে করে।

শীর্ষ সেনা কর্মকর্তা এ কথাও বলেছিলেন যে রোহিঙ্গারা কখনোই মিয়ানমারের জাতিগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত ছিল না।

ভারতে রোহিঙ্গা শরণার্থীরা হঠাৎ করেই কেন বিপজ্জনক হয়ে গেল?
ভারত সরকার সুপ্রিম কোর্টকে লিখিতভাবে জানিয়েছে, প্রায় ৪০ হাজার রোহিঙ্গা শরণার্থী ভারতে বসবাস করছেন এবং তাদের কারণে দেশটির জাতীয় নিরাপত্তা বিঘ্নিত হতে পারে। সেকারণেই, জাতীয় স্বার্থে ওই শরণার্থীদের তাদের নিজেদের দেশে, অর্থাৎ মিয়ানমারে ফিরিয়ে দিতে চায় ভারত সরকার।

অগাস্টের শেষ সপ্তাহে মিয়ানমারের সাম্প্রতিকতম সহিংসতা শুরু হওয়ার পর থেকে গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই একাধিক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী আর ক্ষমতাসীন দল বি জে পি-র নেতারা রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভারতের এই অবস্থানের কথা জানিয়ে আসছেন।

ভারতে রোহিঙ্গা শরণার্থীরা বেশ অনেক বছর ধরেই আছেন।

যদিও তাদের সিংহভাগই অবৈধভাবে দেশে ঢুকেছে, কিন্তু এখনই কেন হঠাৎ করে সরকারের মনে হল যে এই শরণার্থীদের থাকতে দিলে জাতীয় নিরাপত্তার ব্যাপারে আপোষ করা হবে?

'সাউথ এশিয়া টেররিজম' পোর্টাল দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলের জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদী কার্যকলাপের তথ্য সংগ্রহ ও বিশ্লেষণের কাজ করে।

এই পোর্টালের পরিচালক অজয় সাহানী বলেছেন, "রোহিঙ্গারা যেখান থেকে এসেছেন, সেদেশে জঙ্গি বা সন্ত্রাসী কাজকর্মের কিছু নির্দিষ্ট তথ্য আছে ঠিকই কিন্তু তার কোনও বড়সড় প্রভাব ভারতের নিরাপত্তা ব্যবস্থার ওপরে পড়ে নি। যদিও পাকিস্তান-ভিত্তিক বেশ কয়েকটি সন্ত্রাসী সংগঠন রোহিঙ্গাদের ভারতের বিরুদ্ধে ব্যবহার করার ব্যর্থ চেষ্টা করেছে।"

যে রোহিঙ্গা শরণার্থীরা জাতীয় নিরাপত্তা বিঘ্নিত করতে পারে বলে সরকার মনে করছে, তারা কারা?

জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থার পরিচয়পত্র পাওয়া রোহিঙ্গা আছেন প্রায় ১৬ হাজার। এছাড়াও আরও প্রায় ৫০০ রোহিঙ্গা বেআইনিভাবে ভারতে প্রবেশের দায়ে আটক আছেন দেশের বিভিন্ন জেলে।

এছাড়াও একটা বড় অংশ রোহিঙ্গা শরণার্থী ভারতে প্রবেশ করে মিশে গেছেন সাধারণ মানুষের মধ্যে।

তাদের অনেকেই থাকেন ভারত-শাসিত জম্মু-কাশ্মীরে। কেউ থাকেন দিল্লিতে শরণার্থী শিবিরে। আবার অনেকে বাস করেন হায়দ্রাবাদ, গুজরাট, মুম্বাইতে।
কায়িক পরিশ্রমের কাজ যেমন ময়লা পরিষ্কার থেকে শুরু করে রোহিঙ্গা নারীদের কেউ কেউ যৌন পেশাতেও যুক্ত হয়েছেন বলে ভারতের রোহিঙ্গা শরণার্থীদের ওপরে তইর একটি সাম্প্রতিক গবেষণায় বলা হয়েছে।

ওই গবেষণাপত্রটি লিখেছেন কলকাতার রবীন্দ্র-ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক সব্যসাচী বসু রায়চৌধুরী। তার কাছে জানতে চেয়েছিলাম এই রোহিঙ্গা শরণার্থীরা ভারতের নিরাপত্তার জন্য কতো বড় ঝুঁকি?

"ভারতে যে সংখ্যায় রোহিঙ্গা শরণার্থী আছেন তারা সবাই জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত হয়ে পড়েছে, এটা অবাস্তব, অলীক কল্পনা। রোহিঙ্গা শিবিরগুলোতে ঘুরে আমার সেরকমটাই মনে হয়েছে। যাদের সঙ্গে কথা বলেছি, তাদের মধ্যে দু একজনের হয়তো কিছুটা সহানুভূতি লক্ষ্য করেছি কোনও কোনও ইসলামী মৌলবাদী সংগঠনের প্রতি। কিন্তু তারা সকলেই জাতীয় নিরাপত্তা বিঘ্নিত করে দিতে পারে, এমনটা কখনই মনে হয় নি," বলছিলেন মি. বসু রায় চৌধুরী।

তিনি আর বলছিলেন, "যে কোনও সম্প্রদায়ের মানুষের মধ্যেই জঙ্গি যোগাযোগ থাকতেই পারে। রোহিঙ্গাদের মধ্যেও দু'চারজন গিয়ে থাকতে পারেন সেই পথে, কিছু মানুষকে বিভিন্ন ইসলামী মৌলবাদী সংগঠন বিপথে পরিচালিত করে থাকতে পারে, এতে আশ্চর্য হওয়ার কিছু নেই। বিশেষ করে জাতিসংঘের মতে রোহিঙ্গারা হচ্ছে এই মুহূর্তে পৃথিবীর সবথেকে বৃহৎ রাষ্ট্রহীন জনগোষ্ঠী, যারা এতোটা নিপীড়নের মধ্যে দিয়ে দিন কাটাচ্ছে। এই অবস্থায়, যাদের দেওয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে, তাদের মধ্যে থেকে দু'চারজন বিভিন্ন ইসলামী মৌলবাদী গোষ্ঠীর দিকে আকৃষ্ট হয়ে থাকতেই পারে। কিন্তু সবাইকেই সম্ভাব্য জঙ্গি বলে মনে করার পেছনে নির্দিষ্ট রাজনৈতিক ভাবনা আছে। রোহিঙ্গাদের ধর্মীয় পরিচিতিই এই ভাবনার উৎস।"

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক ও নিরাপত্তা বিশ্লেষক অনিন্দ্যজ্যোতি মজুমদার বলছিলেন, পৃথিবীর সব দেশই চিরকাল এই স্ট্র্যাটেজি নিয়ে এসেছে যে, যাদের দেশে থাকতে দেওয়াটা বাঞ্ছনীয় নয়, তাদেরকেই জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থের পরিপন্থী বলে দেখানো হয়েছে।

"ভারতের এই অবস্থানটা নতুন কিছু নয়। রাষ্ট্র সবসময়েই নিরাপত্তার প্রশ্ন তুলে শরণার্থীদের সমস্যার বিচার করে। শরণার্থীরা তো নানা কারণ অন্য দেশে আশ্রয় নেয়, কিন্তু আশ্রয়দাতা দেশ যদি তাদের অবাঞ্ছিত মনে করতে শুরু করে, হাত ধুয়ে ফেলতে চায়, তখনই এই জাতীয় নিরাপত্তা বা সুরক্ষার প্রসঙ্গটা তোলে। এক্ষেত্রেও সেটাই হচ্ছে। এর সঙ্গে মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি থাকা না থাকাটা কিন্তু কোনভাবে জড়িয়ে নেই। সেটা সম্পূর্ণ ভিন্ন বিষয়," বলছিলেন মি. মজুমদার।
তিনি আরও ব্যাখ্যা করছিলেন, জাতীয় নিরাপত্তার প্রসঙ্গ আর মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে শরণার্থী সমস্যার সমাধান করাটা অনেক ক্ষেত্রেই একে অপরের বিপরীতে অবস্থান করে। ভারত যদি এই শরণার্থীদের রাখতে চাইত, তাহলে কোনও জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থের কথা তুলতো না। তাদের রাখতে চায় না, মিয়ানমারে ফেরত পাঠাতে চায় বলেই ভারত জাতীয় নিরাপত্তার প্রসঙ্গ তুলছে।

অজয় সাহানী যদিও মনে করছেন যে রোহিঙ্গারা ভারতের নিরাপত্তা বিঘ্নিত করতে পারে, এমনটা ভাবার সময় এখনও আসে নি, তবুও একটি বিষয়ে ভারতের চিন্তার উদ্রেক ঘটাতে পারে। সেটা হল ভারত-শাসিত জম্মু-কাশ্মীর রাজ্যে বড় সংখ্যায় রোহিঙ্গা শরণার্থীদের উপস্থিতি।

"যদিও রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে এখনই নিরাপত্তা বিঘ্নিত হওয়ার কোনও আশঙ্কা নেই, তবুও এটা বলতে পারি যে জম্মু-কাশ্মীরের মতো একটা জায়গা, যেখানে সবসময়ে সহিংসতা চলছে, অশান্তি চলছে, সেরকম জায়গায় রোহিঙ্গাদের রাখাটা বোধহয় অনুচিত। সেটা নিয়ে সরকার যদি চিন্তাভাবনা করত, তার একটা যৌক্তিকতা খুঁজে পাওয়া যেত। কিন্তু এর বাইরে রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর পেছনে কোনও যুক্তি আছে বলে মনে করি না। আর ফেরত পাঠাবেন কোথায়? কে নেবে রোহিঙ্গাদের? মিয়ানমার নেবে না। বাংলাদেশই বা কেন নেবে? তাহলে কোথায় ফেরত পাঠাবেন এদের?" প্রশ্ন মি. সাহানীর।

বিশ্লেষকরা এটাও বলছেন, ভারত যদি সরকারি অথবা বেসরকারি সংস্থাগুলোর মাধ্যমে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রতি আরও বেশী সহানুভূতিশীল হতো, তাদের অন্ন-বস্ত্র-বাসস্থান-শিক্ষার সুষ্ঠু ব্যবস্থা করতো, তাহলে কিন্তু তাদের মধ্যে প্রভাব বিস্তার করার যে চেষ্টা কিছু জঙ্গি সংগঠন করেছে, সেগুলোও অঙ্কুরেই বিনাশ করা সম্ভব হতো। সূত্র: বিবিসি

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech