দেশ-বিদেশে নারীদের সম্মান ও মর্যাদা এভাবে ম্লান হতে পারে না

  

পিএনএস (মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম প্রধান) : নির্যাতনের শিকার হয়ে সৌদি আরব থেকে ২৪ নারী গৃহশ্রমিক দেশে ফিরেছেন। গত ১৬ নভেম্বর রাতে সৌদি এয়ারলাইন্সের এসভি ৮০৪ ফ্লাইটে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান তারা। বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ব্রাক ও বাংলাদেশ দূতাবাসের মাধ্যমে নারী গৃহশ্রমিকদের দেশে ফিরিয়ে আনা হয়। ফিরে আসাদের মধ্যে দুজন মানসিক ভারসাম্যহীন বলেও জানা গেছে।

ভুক্তভোগী নারীরা জানান, মালিকের ঠিকমত বেতন না দেওয়া, শারীরিক নির্যাতন, দেশে কথা বলতে না দেওয়াসহ নানা কারণে তারা ফেরত এসেছেন। দেশে ফেরত আসার আগে তারা রিয়াদের ডিপোর্ট সেন্টারে অপেক্ষমাণ ছিলেন। ফিরে আসা কর্মী মাদারীপুরের লায়লা আক্তার বলেন, ‘সৌদি আরবে যে পরিমাণ অত্যাচার করা হয় তাতে সে দেশে লোক পাঠানো বন্ধ করে দেওয়া উচিত।’ এ সময় তিনি তার হাতে নির্যাতনের চিহ্ন বের করে দেখান।

সৌদি আরব থেকে অকত্য নির্যাতনের শিকার হয়ে আমাদের দেশের নারী শ্রমিকরা কয়েক বছর যাবৎ ফিরে আসছেন। অমানবিক নির্যাতনের শিকার হয়ে দেশে ফিরছেন তারা। নির্যাতন এবং ফিরে আসার ঘটনা নতুন নয়। তার পরও নিরীহ ও নিম্ন আয়ের পরিবারের অবলা নারীদের সঙ্গে চরম অরাজকতা শুধু নয়, সর্বনাশা কাজে মেতে উঠেছে একশ্রেণীর আদম ব্যবসায়ী।

অভিযোগে প্রকাশ, গৃহকর্মী পাঠানোর নামে জেনে-বাঝে এক শ্রেণীর রিক্রুটিং এজেন্সি যৌন কর্মী পাঠাচ্ছে। আর সেখানে গিয়ে অবর্ণনীয়-অকত্য নির্যাতনের মুখে টিকতে না পেরে ফতুর হয়ে খালি হাতে নির্যাতনের চিহ্ন নিয়ে বাড়ি ফিরছে তারা। প্রতিবারই বিমানবন্দরে তাদের কান্নায় আকাশ-বাতাস ভারি হচ্ছে। তাদের এককথা- কোনো নারী কর্মী যেন সে দেশে পাঠানো না হয়।

একের পর এক প্রতারণার পরও অজপাড়াগায়ে নারীরা দালালদের খপ্পরে পড়ে দেশ ছাড়ে আর কঠিন বাস্তবতার মুখোমুখি হয়ে শরীরে নির্যাতনের ক্ষতচিহ্ন আর একবুক কষ্ট নিয়ে দেশে ফিরছেন। তাদের নির্যাতনের ভয়াবহ বর্ণনা ও চিত্র সচেতন মানুষকে অবাক করছে। নির্যাতন শুধু সৌদির মানুষ করেনি, করেছে রিক্রুটিং এজেন্সির লোকজন ও দালালরা।

এমন গর্হিত ও ন্যক্কারজনক বিষয়টি জানার পরও মহলটি লোক পাঠানো বন্ধ করেনি। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষও প্রয়োজনীয় প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় অপকর্মটি থামছে না। ফলে চলতি বছরের প্রথম আট মাসে প্রায় দেড় হাজার নারী কর্মী মধ্যপ্রাচ্য থেকে ফেরত আসে। প্রায় সবার এক ও অভিন্ন বক্তব্য- নির্যাতনের এমন কোনো দিক নেই, যা তাদের উপর হয়নি।

দীর্ঘদিন আমাদের দেশে নারীরা ক্ষমতায়। সংসদ নেতা ও বিরোধীদলীয় নেতা নারী। স্পিকারও নারী। অনেক গুরুত্বপূর্ণ পদে নারী আসীন। যে দেশের নারীদের এত জয়জয়কার, সে দেশের নারীরা প্রতারণার শিকার হয়ে বিদেশ যাবেন আর নিঃস্ব ও নির্যাতিত হয়ে দেশে ফিরে আসার মিছিল দীর্ঘ হবে, সেটা ভাবতে কষ্ট হয় সচেতন জনগোষ্ঠীর।

অপরাধ বিশেষজ্ঞ ও অভিজ্ঞ মহলের মতে, নিম্ন আয়ের নারীদের নিয়ে এক শ্রেণীর রিক্রুটিং এজেন্সির মালিক ও দালাল চক্র যেভাবে সর্বনাশা খেলায় মেতে উঠেছে, তা কোনোমতেই মানা যায় না। নারীদের সম্মানহানি ও প্রতারণার সঙ্গে যুক্তদের চিহ্নিত করা সহজ। কে বা কারা তাদের পাঠিয়েছে এবং সর্বনাশ করেছে, এটা তো জানা কঠিন কোনো বিষয় নয়। এ চক্রের বিরুদ্ধে সাঁড়াসি অভিযান পরিচালনাপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির আওতায় আনা সময়ের দাবি।

লেখক : বিশেষ প্রতিনিধি- পিএনএস

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech