চট্টগ্রামে আপিল করে প্রার্থিতা ফিরে পেলেন বিএনপির ৩ প্রার্থী

  

পিএনএস ডেস্ক: মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে আপিল করে প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন চট্টগ্রাম-১ (মিরসরাই) আসনের ধানের শীষের প্রার্থী নুরুল আমিন, চট্টগ্রাম-৩ (সন্দ্বীপ) আসনের মোস্তফা কামাল পাশা ও চট্টগ্রাম-৮ (বোয়ালখালী) আসনের এরশাদ উল্লাহ।

এছাড়া আপিলেও বাতিল হয়ে গেছে চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারী) আসনে ধানের শীষের প্রার্থী মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিনের প্রার্থিতা। তবে চট্টগ্রাম-৯ (কোতোয়ালী) আসনে ধানের শীষের বিকল্প প্রার্থী সামসুল আলমের প্রার্থিতা স্থগিত রাখা হয়েছে। শর্ত পূরণ করলে তার মনোনয়নও বৈধ হবে বলে জানিয়েছে ইসি।

বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদার নেতৃত্বাধীন কমিশনের আপিল শুনানি শেষে এসব সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়।

শুনানি শেষে সন্ধ্যায় নির্বাচন কমিশনের যুগ্ম সচিব এসএম আসাদুজ্জামান বলেন, বৃহস্পতিবার ১৬০ জনের শুনানি শেষ করেছে নির্বাচন কমিশন। এর মধ্যে ৮০ জনকে বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে, বাতিল বা খারিজ করা হয়েছে ৭৬ জনকে। চারটি আপিল আবেদনের পক্ষে কেউ উপস্থিত না থাকায় শুনানি হয়নি।

যারা প্রার্থিতা ফেরত পেলেন
গত ২ ডিসেম্বর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ না করার কারণ দেখিয়ে চট্টগ্রাম-১ (মিরসরাই) আসনের ধানের শীষের প্রার্থী নুরুল আমিনের মনোনয়নপত্র বাতিল করে চট্টগ্রামের রিটার্নিং কর্মকর্তা। তবে নির্বাচন কমিশনে আপিল করে প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন তিনি।

৫৪ হাজার টাকার টিঅ্যান্ডটি বিল বকেয়া থাকার কারণ দেখিয়ে চট্টগ্রাম-৩ (মিরসরাই) আসনের ধানের শীষের প্রার্থী মোস্তফা কামাল পাশার মনোনয়নপত্র বাতিল করেন চট্টগ্রামের রিটার্নিং কর্মকর্তা। তবে নির্বাচন কমিশনে আপিল করে প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন তিনি।

ব্যাংক হিসাব না খোলার কারণ দেখিয়ে চট্টগ্রাম-৮ (বোয়ালখালী) আসনের ধানের শীষের বিকল্প প্রার্থী এরশাদ উল্লাহর মনোনয়নপত্র বাতিল করেন চট্টগ্রামের রিটার্নিং কর্মকর্তা। তবে নির্বাচন কমিশনে আপিল করে তিনিও প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন।

উপজেলা চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করে মন্ত্রণালয় থেকে কপি আনতে না পারায় চট্টগ্রাম-১৬ (বাঁশখালী) আসনে জামায়াতের প্রার্থী মোহাম্মদ জহিরুল ইসলামের মনোনয়নপত্র বাতিল করেন চট্টগ্রামের রিটার্নিং কর্মকর্তা। তবে নির্বাচন কমিশনে আপিল করে প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন তিনি। এছাড়া প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন চট্টগ্রাম-১০ (ডবলমুরিং) আসনে জাসদের আনিরসুর রহমান।

এছাড়া চট্টগ্রাম-৯ (কোতোয়ালী) আসনে বিএনপির বিকল্প প্রার্থী মোহাম্মদ সামশুল আলমের বিভিন্ন ব্যাংকে ঋণ পাওনা থাকায় মনোনয়নপত্র বাতিল করেন চট্টগ্রামের রিটার্নিং কর্মকর্তা। তবে নির্বাচন কমিশনে আপিলের পর তার প্রার্থিতা স্থগিত রাখা হয়েছে। শর্ত পূরণ করলে তার মনোনয়নও বৈধ হবে বলে জানিয়েছে ইসি।

তবে আপিল করলেও ঋণ খেলাপির কারণে বাতিল হয়ে গেছে চট্টগ্রাম-৫ (হাটহাজারী) আসনে ধানের শীষের প্রার্থী মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিনের প্রার্থিতা।

পিএনএস/হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech