রিয়াল মাদ্রিদের দুঃসংবাদ

  

পিএনএস ডেস্ক : রিয়াল মাদ্রিদের মৌসুমের শুরুটা একদমই ভালো যাচ্ছে না। মৌসুম শুরু হওয়ার আগেই ইতিহাস জন্ম দেওয়া কোচ জিনেদিন জিদান বিদায় নিয়েছেন। দলবদলের দোকান খুলতে না খুলতেই চলে গেছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো।

পর্তুগিজ ফরোয়ার্ডের শূন্যস্থান পূরণে নেইমার ও পরে কিলিয়ান এমবাপ্পের নাম শোনা গেছে। কিন্তু দুজনের ব্যাপারেই আনুষ্ঠানিকভাবে নিজেদের অনিচ্ছার কথা জানিয়েছে রিয়াল। তবে কে পূরণ করবেন রোনালদোর শূন্যস্থান?

স্বভাবতই হ্যারি কেইন, মোহাম্মদ সালাহদের নাম এসেছে। এসেছে রবার্ট লেবানডফস্কি, মাউরো ইকার্দিদের কথাও। তবে সবচেয়ে বেশি আওয়াজ উঠেছিল এডেন হ্যাজার্ডকে নিয়ে। সেই ২০১২ সাল থেকেই রিয়ালের সঙ্গে তাঁর নাম জড়িয়ে আছে।

প্রতি দলবদলেই একবার শোনা যায়, হ্যাজার্ড নাকি রিয়ালে যাচ্ছেন। এবারের বিশ্বকাপে অনবদ্য খেলে সে আলোচনা দারুণভাবেই জমিয়ে দিয়েছিলেন এই বেলজিয়ান। বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড় এমনিতেই রিয়ালে আছেন, দ্বিতীয় সেরা খেলোয়াড়ের দিকে রিয়াল নজর দিতেই পারে।

গত মৌসুমের মাঝপথে হ্যাজার্ডের বাবা সংবাদমাধ্যমের কাছে বোমা ফাটিয়েছিলেন। বলেছিলেন, তাঁর ছেলে রিয়ালের জার্সি গায়ে খেলতে চান। বিশ্বকাপ শেষ হওয়ার পর হ্যাজার্ড নিজেও সে গুঞ্জন জোরালো করেছেন। বলেছেন, আপনারা সবাই জানেন আমি কোন দলের হয়ে খেলতে চাই।

সেটা যে রিয়াল সেটা শুধু সাংবাদিক নয়, ফুটবল অনুসারী সবাই জানেন। তাই হ্যাজার্ডকে রিয়ালে দেখার আশা বাড়ছিল। বিশেষ করে হ্যাজার্ডের জন্য বিশ্ব রেকর্ড ভাঙার গুঞ্জনও নতুন করে শুরু হয়েছিল।

তবে গতকাল হ্যাজার্ড নিজেই সে গুঞ্জনটা থামিয়ে দিলেন। ইংল্যান্ডে এবার আগেই দলবদলের বাজার শেষ হয়ে গেছে। স্পেনে অবশ্য ৩১ আগস্ট পর্যন্ত সেটা চলবে। ফলে চেলসির কাছ থেকে হ্যাজার্ডকে ছিনিয়ে আনতেই পারে রিয়াল, যদি হ্যাজার্ডের ইচ্ছা থাকে।

কিন্তু ২৭ বছর বয়সী ফরোয়ার্ড তেমন কোনো ইচ্ছার কথা জানাননি, ‘বিশ্বকাপের পর কী বলেছি, সেটা সবাই জানেন। আমি এখানে সুখী। আমি এ নিয়ে আপাতত কিছু বলতে চাই না। অনেক কিছুই বলা হয়েছে এ নিয়ে, ফালতু কথাও ছিল এর মধ্যে। বর্তমানের কথা বললে, আমি খুশি। আমার চুক্তির এখনো দুই বছর বাকি আছে এবং এরপর দেখব কী হয়। আমি যাচ্ছি না (এ বছর)।’

রিয়ালের সাদা জার্সি যে তাঁর পছন্দ সেটা কখনোই আড়াল করেননি। তাহলে কেন রিয়ালে যাওয়ার রাস্তাটা নিজেই বন্ধ করে দিচ্ছেন হ্যাজার্ড? তাঁর উত্তর শুনলে চেলসি সমর্থকেরা তাঁকে ক্লাব কিংবদন্তির পর্যায়েই নিয়ে যাবেন, ‘ইংল্যান্ডে দলবদলের বাজার এর মধ্যেই বন্ধ হয়ে গেছে।

আমরা হয়তো বিক্রি করতে পারব কিন্তু নতুন কাউকে আনতে পারব না। আমাকে ছেড়ে দিয়ে কোনো নতুন কাউকে না আনাটা খুব অদ্ভুত সিদ্ধান্ত হবে (চেলসির জন্য)। আর্সেনালের বিপক্ষেই তো দেখলাম সমর্থকেরা আমাকে কত পছন্দ করে। এখানে আমি স্বচ্ছন্দ। এক বা দুই বছর পর দেখা যাবে কী হয়।’

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech