জলমহাল ইজারা প্রদানের দাবিতে গাইবান্ধায় মানববন্ধন

  

পিএনএস,গাইবান্ধা: গাইবান্ধা সুন্দরগঞ্জ উপজেলার গারখান ছাগলকাটি জলমহাল ইজারা প্রদানের দাবিতে রোববার শহরের ডিবি রোডে রামজীবন ইউনিয়নের ভবানীপুরের মৎস্যজীবি সমিতির উদ্যোগে এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধন চলাকালে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন গাইবান্ধা জেলা বাসদ সমন্বয়ক গোলাম রব্বানী, সিপিবির জেলা সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান মুকুল, বাসদ জেলা ফোরাম সদস্য অ্যাড. মোস্তফা মনিরুজ্জামান, আবু বকর সিদ্দিক, সুকুমার চন্দ্র মোদক, সাবেক বাসদ নেতা সাদেকুল ইসলাম গোলাপ, প্রবীর চক্রবর্ত্তী, মৎস্যজীবির সমিতির সভাপতি ধীরেন্দ্রনাথ, সাধারণ সম্পাদক সুধীন দাস প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ভবানীপুর মৎস্যজীবি সমিতি কয়েক যুগ ধরে গারখান ছাগলকাটি জলমহাল ইজারা নিয়ে মৎস্য শিকার করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। সমিতির সদস্যরা সবাই প্রকৃত জেলে। কিন্তু গত চৈত্র মাসে যখন জলমহাল ইজারা দেয়া হয়, তখন বাজারপাড়া মৎস্যজীবি সমিতির নামে একটি ভুইফোড় সংগঠন প্রতারনামূলকভাবে গারখান ছাগলকাটি জলমহাল ইজারা নেন।

উল্লেখ্য, উক্ত সমিতির সদস্যরা প্রকৃত জেলে নন। তারা স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী। বাজারপাড়া মৎস্যজীবি সমিতিতে যে সমস্ত জেলের নাম আছে তাদের সাথে প্রতারণা করা হয়েছে। সরকারি চাল দেয়ার কথা বলে তাদের ন্যাশনাল আইডিকার্ড নেয়া হয়েছিল। কিন্তু তারা ওই সমিতেতে স্বাক্ষর করেনি। ওই সমিতেতে প্রকৃত জেলে হিসেবে যাদের নাম আছে তাদের স্বাক্ষর ভুয়া।

বক্তারা আরও বলেন, জলমহাল আইন অনুযায়ি শুধুমাত্র প্রকৃত জেলে সম্প্রদায়ের কাছে জলমহাল ইজারা দিতে হবে। গারখান ছাগলকাটি জলমহালের ক্ষেত্রে সে নিয়ম মানা হয়নি। ভবানীপুর মৎস্যজীবি সমিতির সদস্যরা প্রকৃত জেলে। জলমহাল ইজারা না পেয়ে তারা মৎস্য শিকার করতে পারছে না। মৎস্য শিকার ছাড়া তারা অন্য কোন পেশাও জানে না। তাই তারা পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে।

বক্তারা অবিলম্বে বাজারপাড়া মৎস্যজীবি সমিতির ইজারা বাতিল করে গারখান ছাগলকাটি জলমহাল ভবানীপুর মৎস্যজীবি সমিতির নামে ইজারা দেয়ার দাবি জানান। মানববন।দনের পূর্বে উপরোক্ত দাবিতে ১টি বিক্ষোভ মিছিল শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। শেষে জেলা প্রশাসক অফিসে গিয়ে জেলা প্রশাসক বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করে।


পিএনএস/আলআমীন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech