১০ বছরে অবহেলিত উপজেলা কাহারোলে উন্নয়নের জোয়ার

  

পিএনএস, কাহারোল (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার ১০ বছর ক্ষমতায় থাকায় সারাদেশে যখন উন্নয়নের জোয়ার বয়ে চলছে। সেই ধারাবাহিকতার কমতি নেই দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলাও। অত্র উপজেলায় এই সরকারের আমলে ব্যাপক উন্নয়নের ছোয়া লেগেছে গ্রামীণ জনপদে। দীর্ঘ স্বাধীনতার পরেও এত উন্নয়ন হয়নি এই উপজেলায়। কিন্তু জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার ক্ষমতায় আসার পর উন্নয়ন ঘটেছে কাহারোলে।

আর এর দাবীদার একমাত্র জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী, বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। এই সরকার যেমন দেশে প্রতিটি জায়গায় উন্নয়নের কাজ করে সরকার পরিচালনা করে আসছেন। তেমনি দেশের অন্যান্য উপজেলার ন্যায় দিনাজপুর জেলার অবহেলিত উপজেলা কাহারোলেও উন্নয়নের দিক থেকে কমতি নেই বললে চলে। কাহারোল উপজেলা ছয়টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত হয় এই উপজেলাটি। দিন, দিন উন্নয়নের প্রয়াস ঘটে চলছে এই অবহেলিত কাহারোল উপজেলা সদর থেকে শুরু করে গ্রামাঞ্চল গুলোতেও। আর এই উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে ভালো মন্দ দেখা শুনার জন্য রয়েছেন একজন জনপ্রতিনিধি।

তিনি হলেন তৎকালীন ১৯৯৫ সালে ২৪ আগষ্ট কতিপয় বিপদগামী পুলিশ কর্তৃক দিনাজপুরের তরুনী ইয়াসমিন ধর্ষন ও হত্যা এবং কাহারোলে পুলিশ কর্তৃক নির্যাতনে নিহত খোকা মিয়া হত্যার একমাত্র আন্দোলনকারী প্রতিবাদী কন্ঠস্বর এবং জাতীয় সংসদের সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল। তিনি বর্তমানে দিনাজপুর-১ (বীরগঞ্জ-কাহারোল) আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য হিসাবে প্রতিনিধিত্ব করছেন। মনোরঞ্জন শীল গোপাল শুধু সংসদ সদস্যই নয় এলাকারগন-মানুষের সুখ-দুঃখের সাথী ও ত্যাগী জনপ্রিয় নেতাও বটে। তার এলাকার সাধারন মানুষ তাকে পরপর তিনবার নির্বাচনী এলাকার জনসাধারণের মূল্যবান ভোট দিয়ে মহান জাতীয় সংসদে পাঠিয়েছেন অত্র দুটি উপজেলার উন্নয়নের কাজকর্ম ত্বরান্বিত করার জন্যই।

মনোরঞ্জন শীল গোপাল তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে এলাকার গরীব, দুঃখি, মেহনতী মানুষের মুখে হাঁসি ফুটানোর পাশা-পাশি অবহেলিত কাহারোল-বীরগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছেন। সংসদ সদস্য মনোরঞ্জনশীল গোপাল তার ১০ বছরে অক্লান্ত পরিশ্রমের প্রচেষ্টায় অবহেলিত শুধুমাত্র কাহারোল উপজেলায় যে সকল উন্নয়ন হয়েছে তা হলো, কাহারোল বাসীর দীর্ঘদিনের স্বপ্ন ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশন স্থাপন, শ্রীশ্রী ঐতিহাসিক কান্তজিউ মন্দির সংলগ্ন ঢেপানদীর উপর ব্রীজ নির্মাণ, উপজেলা প্রশাসনিক ভবন নির্মাণ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্রেক্স নির্মাণ,উপজেলা পরিষদ হল রুম নির্মাণ, কাহারোল উপজেলায় ৩১ শয্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৫০ শয্যায় উন্নতিকরণ ও ডাক্তারদের কোয়াটার নির্মাণ, প্রতিটি গ্রামে ও ঘরে বিদ্যুৎতায়নের ক্ষেত্রে শত, শত কিঃমিঃ বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণ, কাবিখা-টি,আর খাতের সোলার প্যানেল স্থাপন, স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসায় শহীদ মিনার নিমাণ, স্কুল-কলেজের নতুন নতুন ভবন নির্মাণ, বর্তমান সরকারের দুই মেয়াদে ১০ বছরে অত্র উপজেলায় ৮০ কিঃ মিঃ কাচা রাস্তা পাকা করা হয়, মসজিদ, মন্দির, গীর্জা, হাসপাতাল ও এতিমখানর উন্নয়ন, গ্রামীণ জনপদের অবহেলিত ভাঙ্গা ও জরাজ্বীর্ণ রাস্তাগুলো সংস্কার, ছোট-বড়কালভার্ট নির্মান, খেলাধুলার মান উন্নয়নে ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ ও খেলাধুলার মাঠ উন্নয়ন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কম্পিউটার ও ল্যাপটপ বিতরণ, মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একাডেমিক ভবন নির্মাণ, ক্যান্সার রোগীদের চিকিৎসার্থে অর্থপ্রদান,বয়ষ্ক ভাতা, বিধবাভাতা, ভিজিএফ, ভিজিডি কার্ড সুষম বন্টন, ভূমিহীনদের মধ্যে সুষ্ঠভাবে খাস জমি বন্দোবস্তোকরন, আদিবাসিদের উন্নয়ন, গৃহহীনদের আশ্রায়ন প্রকল্প ও গুচ্ছগ্রাম নির্মাণ, মাছ চাষের ক্ষেত্রে নদী, খাল ও জলাশয় খনন, প্রতিবন্ধি ভাতা বৃদ্ধি করন সহ বিভিন্ন উন্নয়নে প্রদক্ষেপ গ্রহণ করে এলাকা পরিচালনা করে আসছেন জাতীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল।এ সকল উন্নয়নের দাবীদার বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের প্রধানমন্ত্রী ও জননেত্রী শেখ হাসিনা।

এদিকে ঢাকায় অবস্থানরত সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল এর সাথে এব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে ১০ বছরে দেশ তথা অত্র কাহারোল-বীরগঞ্জ এলাকার যে উন্নয়ন হয়েছে তা ৫০ বছরেও এসব উন্নয়ন হয়নি। এলাকার জনসাধারণের জীবন যাত্রার মান ও উন্নয়ন কাজ বজায় থাকে সে জন্যই আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে পুনরায় নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে বিজয়ী করে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত করতে হবে।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech