ঝিনাইদহে নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত: গ্রেপ্তার ১

  

পিএনএস ডেস্ক: ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার পৌরসভা নির্বাচনে সহিংসতায় প্রতিপক্ষের হামলায় লিয়াকত আলী বল্টু নিহতের ঘটনায় রোকুনুজ্জামান বাপ্পী নামের একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার ভোরে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতাল থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে শৈলকুপা থানায় নেয়া হয়েছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার রাতে নিহতের ভাই কাউন্সিলর প্রার্থী শওকত আলী বাদী হয়ে রোকুনুজ্জামান বাপ্পীকে প্রধান আসামি করে ২০ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতদের আসামি করে শৈলকুপা থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

সিনিয়র পুলিশ সুপার (শৈলকুপা সার্কেল) আরিফ হোসেন পূর্বপশ্চিমকে জানান, গত রাতে শওকত আলী থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর অভিযান চালিয়ে মামলার প্রধান আসামি বাপ্পী হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এদিকে ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পর শৈলকুপা উপজেলার দেবতলা গ্রামের পার্শ্ববর্তী কুমার নদ থেকে প্রতিপক্ষ কাউন্সিলর প্রার্থী আলমগীর খান বাবুর মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় এখন পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো মামলা দায়ের করা হয়নি।

বুধবার ভোট চাইতে গিয়ে কাউন্সিলর প্রার্থী শওকত হোসেনের ভাই আওয়ামী লীগ নেতা লিয়াকত হোসেন বল্টু (৫০) ছুরিকাঘাতে নিহত হন। এ ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পর প্রতিপক্ষ কাউন্সিলর প্রার্থী আলমগীর খান বাবুর মরদেহ কুমার নদ থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। ফলে শৈলকুপা পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের সাধারণ কাউন্সিলর পদে নির্বাচন স্থগিত করা হয়েছে।

দুটি হত্যার ঘটনায় এখন শৈলকুপা পৌর এলাকাজুড়ে সাধারণ মানুষের মাঝে গ্রেপ্তার আতঙ্ক বিরাজ করছে।

এদিকে ঝিনাইদহের শৈলকুপা পৌর নির্বাচনকে ঘিরে নেওয়া হয়েছে নানা প্রস্তুতি। ইতোমধ্যে পুলিশ ও বিজিবি সদস্যরা টহল শুরু করেছে নির্বাচনী এলাকায়।

শৈলকুপা উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার জুয়েল আহমেদ জানান, কিছু অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার পর আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি এখন শান্ত রয়েছে।

তিনি জানান, প্রতিটি কেন্দ্রে একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, বিভিন্ন কেন্দ্রে দুইজন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, দুই প্লাটুন বিজিবি এবং চারশ পুলিশ সদস্য এবং ১৩৫ জন আনসার সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। ভোট সুষ্ঠু করতে সার্বিক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

শনিবার (১৬ জানুয়ারি) সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ইভিএমের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।


পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন