স্ত্রীকে ধর্ষণ, স্বামী গ্রেপ্তার!

  

পিএনএস ডেস্ক: চুয়াডাঙ্গায় নিজ স্ত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে স্বাধীন আলী (২০) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। গত শুক্রবার রাতে অভিযান চালিয়ে তাকে দামুড়হুদা উপজেলার জয়রামপুর গ্রাম থেকে আটক করা হয়।

স্থানীয়রা জানান, দামুড়হুদা উপজেলার জয়রামপুর গ্রামের ডালু ইসলামের ছেলে স্বাধীনের সঙ্গে গত কয়েক মাস আগে বিয়ে হয় একই গ্রামের নাবালিকা এক মেয়ের। মেয়ের বয়স কম হওয়ায় তখন বিয়ের কাবিননামা তৈরি করেনি উভয়পক্ষের পরিবার। ১ মাস পর স্বাধীন বিয়ের বিষয়টি অস্বীকার করে ওই মেয়েকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়। প্রায় দুই মাস ওই মেয়েকে আশ্বাস দিয়েও ঘরে তোলেনি স্বাধীন।

ওই মেয়ের খালা জানান, গত ২০২০ সালের ৫ নভেম্বর তার বোনের মেয়ে ফুসলিয়ে স্বাধীন জোরপূর্বক তার বন্ধু রাহুলের বাড়িতে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে। পরে তার পরিবার তাকে সেখান থেকে উদ্ধার করে এনে থানা পুলিশে লিখিত অভিযোগ করে। পরে বিষয়টি মীমাংসার পর তাদের বিয়ে দেয়া হয়। মেয়ের বয়স কম হওয়ায় তখন বিয়ের কাবিন নামা তৈরি করা হয়নি।

স্বাধীনের বাবা ডালু ইসলাম জানান, ওই মেয়ের সঙ্গে জোরপূর্বক স্বাধীনের বিয়ে দেয়া হয়েছে। আমার ৫ ছেলে-মেয়ে। মাঠে ৫ কাঠা পানের বরজ আছে। বিয়ের পর ওই মেয়ে বরজের জমি তার নামে লিখে দিতে বললে বিরোধ সৃষ্টি হয়।

দামুড়হুদা মডেল থানার সেকেন্ড অফিসার বাকী বিল্লাহ জানান, শুক্রবার ওই নাবালিকা মেয়ের খালা সালমা খাতুন বাদী হয়ে জয়রামপুর মাঠপাড়ার ডালুর ছেলে স্বাধীন (২০), সুবারেক আলীর ছেলে রাহুল (২০), হাসেম আলীর ছেলে শাকিল (২০), জয়রামপুর গ্রামের মাঠ পাড়ার মৃত ফকির মালিথার ছেলে তাহাজ্জত মালিথা (৫৫) ও দামুড়হুদা উপজেলার নাপিতখালি গ্রামের আব্দুস ছাত্তারের ছেলে (দামুড়হুদা সদর ইউনিয়নের সরকারি কাজি) কুতব উদ্দিন (৫৫) এই ৫ জনের নামোল্লেখ করে থানায় একটি ধর্ষণে অভিযোগ করেন। পরে শুক্রবার রাতে অভিযান চালিয়ে স্বাধীনকে আটক করা হয়। শনিবার দুপুরে উভয়ের পরিবার বিষয়টি নিয়ে মীমাংসায় বসার কথা রয়েছে। মীমাংসা না হলে মামলা রজু করা হবে।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন