বগুড়ায় জেএমবির সামরিক প্রধানসহ তিনজন রিমান্ডে

  

পিএনএস, বগুড়া প্রতিনিধি : নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন নব্য জেএমবির উত্তরাঞ্চলের সামরিক প্রধান ও শুরা সদস্য বাবুল আক্তার ওরফে বাবুল মাস্টার ওরফে মাস্টারসহ তিনজনের ৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত এবং অপর জেএমবি সদস্য মিজানের ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়।

বৃহস্পতিবার দুপুরে গ্রেফতারকৃতদের বগুড়া সিনিয়র চিফ ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে প্রত্যেকের সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেন গোয়েন্দা পুলিশের এসআই ফারুক।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) সনাতন চক্রবর্তী জানান, শুনানি শেষে বিকেলে আদালতের বিচারক মো: শরিফুল ইসলাম জেএমবির উত্তরাঞ্চলের সামরিক প্রধান ও শুরা সদস্য বাবুল আক্তার ওরফে বাবুল মাস্টার ওরফে মাস্টার, সক্রিয় সদস্য আলমগীর হোসেন ওরফে আরিফ ও আফজাল ওরফে লিমনকে ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। অপর নব্য জেএমবির শুরা সদস্য দেলোয়ার হোসেন ওরফে মিস্ত্রি মিজানের ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, বগুড়া-ঢাকা মহাসড়কের শিবগঞ্জের মোকামতলা থেকে বুধবার রাত ১টার দিকে নব্য জেএমবির শীর্ষ নেতা বাবুল আক্তার ওরফে বাবুল মাস্টার ওরফে মাস্টারসহ চারজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এসময় তাদের কাছ থেকে গুলিসহ বিদেশি পিস্তল জব্দ করা হয়।

গ্রেফতারকৃত অন্যরা হলেন- নব্য জেএমবি শুরা সদস্য নওগাঁর মান্দা উপজেলার পারইল আছির হাজাপাড়ার দেলোয়ার হোসেন ওরফে মিস্ত্রি মিজান (৩৯), সাতক্ষীরার তলোইগাছার জেএমবির সক্রিয় সদস্য আলমগীর হোসেন ওরফে আরিফ (২৮), গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার আড়াল এলাকার জেএমবির সক্রিয় সদস্য আফজাল ওরফে লিমন (৩২)।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বগুড়া জেলা পুলিশ এবং পুলিশ সদর দফতরের এলআইসি শাখা যৌথ অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে। নব্য জেএমবির উত্তরাঞ্চল সামরিক প্রধান ও শুরা সদস্য বাবুল আক্তার ওরফে বাবুল মাস্টার ওরফে মাস্টারসহ চার সদস্য মহান বিজয় দিবসে ঢাকায় বড় ধরনের নাশকতায় অংশ নিতে রওনা হয়েছিলেন। এমনটাই ধারণা করছে বগুড়া পুলিশ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নিজ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বগুড়া পুলিশ সুপার মোঃ আসাদুজ্জামান জানান, নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন নব্য জেএমবির উত্তরাঞ্চলের সামরিক প্রধান ও শুরা সদস্য বাবুল আক্তার ওরফে বাবুল মাস্টার ওরফে মাস্টার ২০১৩ সালে জেএমবিতে যোগদান করে উত্তরাঞ্চলের দাওয়াতি কার্যক্রম চালিয়ে আসছেন। ২০১৪ সালে নব্য জেএমবিতে যোগদান করে সাংগঠনিক কাজে অত্যন্ত দক্ষ হওয়ায় ২০১৭ সালের প্রথম দিকে উত্তরাঞ্চলের সামরিক প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পান। বাবুল মাস্টার ২০১৫ সালের নভেম্বরে রংপুর জেলার কাউনিয়ায় খাদেম রহমত আলী হত্যা মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি এবং ২০১৬ সালে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জের মহিমাগঞ্জ এলাকার জুতা ব্যবসায়ী দেবেশ চন্দ্র হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি তিনি সরবরাহ করেছিলেন। এরপর থেকে এ অঞ্চলের ১৬টি জেলার নব্য জেএমবির সাংগঠনিক কার্যক্রম, নতুন সদস্য সংগ্রহ, অর্থ সংগ্রহ, হামলা টার্গেট, ব্যক্তি ও স্থান নির্ধারণের দায়িত্ব পালন করেন।

বাবুল মাস্টারের বাড়ি দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলায়। ঢাকার গুলশানের হোলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলার অন্যতম পরিকল্পনাকারী রাজীব গান্ধী ওরফে জাহাঙ্গীর আলমের পর নব্য জেএমবির উত্তরবঙ্গের নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন বাবুল। রাজীব গান্ধী দীর্ঘদিন ধরে গ্রেফতার আছেন।

পুলিশ সুপার মোঃ আসাদুজ্জামান আরও জানান, গ্রেফতারকৃতদের কাছ থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, ১৫টি গুলি, ম্যাগাজিন, ১টি চাপাতি ও চারটি বার্মিজ চাকু উদ্ধার করা হয়েছে।

প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, তারা ঢাকায় গিয়ে বড় ধরনের কোনো নাশকতার অপারেশনে অংশগ্রহণের পরিকল্পনা করছিল। রিমান্ডে এনে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

সংবাদ সম্মেলনে বগুড়া অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরিফুর রহমান মন্ডল আরিফ এবং (সদর) সনাতন চক্রবর্তী, বগুড়া গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নুরে আলম সিদ্দিকীসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল



 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech