ছাত্রলীগের বাধার আশঙ্কায় পুলিশি পাহারায় রাবিতে পরীক্ষা

  

পিএনএস : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা বাধা দিতে পারে এমন আশঙ্কায় পুলিশি পাহারায় অনুষ্ঠিত হয়েছে ইনফরমেশন সায়েন্স এন্ড লাইব্রেরী ম্যানেজমেন্ট বিভাগের চতুর্থ বর্ষের পরীক্ষা। মঙ্গলবার রবীন্দ্র ভবনের ১৫১ ১৫২ নম্বর কক্ষে সকাল সাড়ে ৯টা থেকে দুপুর ১.৩০ টা পর্যন্ত এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে সোমবার দুপুর ১টার দিকে রাবি শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও অছাত্র শরিফুল ইসলাম সাদ্দাম সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ নেতাকর্মীদের নিয়ে বিভাগে যান। সেখানে তিনি মঙ্গলবার থেকে শুরু হওয়া চতুর্থ বর্ষের পরীক্ষায় অংশ নেওয়া ইচ্ছা পোষণ করেন। কিন্তু সাদ্দামকে পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার অনুমতি দেননি বিভাগের সভাপতি।

জানা যায়, ৬ বছরের মধ্যে স্নাতক সম্পন্ন করার বিধান থাকলেও তৃতীয় বর্ষে থাকতেই সাদ্দামের ৫ বছর শেষ হয়ে যাওয়ায় তার ছাত্রত্ব বাতিল হয়ে যায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম অনুযায়ী শরিফুল ইসলাম সাদ্দাম এখন আর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নন।

বিভাগ সূত্রে জানা যায়, সাদ্দাম ২০১০-১১ সেশনে ইনফরমেশন সায়েন্স এন্ড লাইব্রেরি ম্যানেজমেন্ট বিভাগে ভর্তি হয়ে প্রথম বর্ষ শেষ করেন। এরপর তিনি দুই বর্ষ ড্রপ দেন। পরের বছর দ্বিতীয় বর্ষের পরীক্ষা দিয়ে পাশ করলেও তৃতীয় বর্ষের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারেননি সাদ্দাম। ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম অনুযায়ী সর্বোচ্চ ছয় বছরে স্নাতক শেষ করার বিধান থাকলেও ৫ বছর শেষ হয়ে গেলেও সাদ্দাম এখনো তৃতীয় বর্ষে। সে অনুযায়ী তার ছাত্রত্ব বাতিল হয়ে গেছে।

পুলিশি নিরাপত্তা বিষয়ে বিভাগের সভাপতি ড. পার্থ বিপ্লব রায় বলেন, ‘ড্রপ আউট হওয়া আমাদের এক শিক্ষার্থী সোমবার বিভাগে অনেক লোকজন নিয়ে এসে পরীক্ষা দিতে চায়। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়ম অনুযায়ী তার ছাত্রত্ব না থাকায় তিনি পরীক্ষা দেওয়ার যোগ্য নয়। ওই শিক্ষার্থী যেন বিশৃঙ্খলা না করতে পারে এবং আজকের চতুর্থ বর্ষের পরীক্ষা যাতে সুষ্ঠুভাবে হতে পারে তাই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে জানাই। তাই প্রশাসন নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর ড. মুজিবুল হক আজাদ খান বলেন, ‘গতকাল রাতে উপাচার্য মহোদয় আমাকে ফোন করে বলেন, ইনফরমেশন সায়েন্স ও লাইব্রেরী ম্যানেজমেন্ট বিভাগের আজকের পরীক্ষা যেন সুষ্ঠুভাবে হয় সেটা একটু দেখেন। আর তাই আমি এখানে নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছি।’

বিভাগের ফটকের সামনে অবস্থানরত কাটাখালি পুলিশ ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. খালেদুর রহমান জানান, ‘ইনফরমেশন সায়েন্স এন্ড লাইব্রেরী ম্যানেজমেন্ট বিভাগের পরীক্ষায় কোনো বিশৃঙ্খলা যাতে না হয় সেটা দেখতেই আজকে আমরা এখানে অবস্থান করছি।’

এবিষয়ে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রাশেদুল ইসলাম বলেন, ছাত্রলীগ নেতা সাদ্দাম তার বিভাগে কি করেছে তা আমি জানি না। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ সাদ্দামের ওই ধরণের কর্মকান্ড সমর্থন করেনি। তাই আমরা তার বিভাগের আর কোনো যোগাযোগ করিনি।

তবে এবিষয়ে জানার জন্য ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শরিফুল ইসলাম সাদ্দামের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

পিএনএস/হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech