কাঠগড়ায় কাঁপছিলেন মজনু

  

পিএনএস ডেস্ক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেপ্তার ‘সিরিয়াল রেপিস্ট’ মজনুকে সাতদিনের রিমান্ড দিয়েছেন ঢাকা মহানগর হাকিম আদালত। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে শুনানি শেষে মহানগর হাকিম মো. সারাফুজ্জমান আনছারী এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

ওই ছাত্রীর বাবার দায়ের করা মামলায় আজ দুপুরে মজনুকে ঢাকার মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করা হয়। পরে তাকে রাখা হয় কাঠগড়ায়। শুনানির পুরোটা সময় কাঁপছিলেন মজনু।

আদালতে মজনুর ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক আবু সিদ্দিক। পরে তার সাতদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়।

সরেজমিন দেখা যায়, কাঠগড়ায় ঢুকে প্রথমে বসে পড়েন মজনু। এর একটু পরই উঠে দাঁড়ান। শুনানির পুরোটা সময় মাথা নিচু করে রাখনে তিনি। তাকে প্রায় অস্বাভাবিক দেখা যায়, এ সময় তিনি ছিলেন নিশ্চুপ। তখন তার পুরো শরীর কাঁপছিল।

এর আগে আজ দুপুরে ডিবি কার্যালয় থেকে গ্রেপ্তার মজনুকে আদালতে নেওয়া হয় বলে জানান ঢাকা মহানগর ডিবির উপকমিশনার মশিউর রহমান।

মশিউর রহমান বলেন, ‘ডিএনএসহ নানা ধরনের প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা পর এসব বিষয়ে বিশেষজ্ঞদের মতামত পাওয়া গেলে আমরা দ্রুতই এ মামলার অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দিতে পারব।’



গত রোববার সন্ধ্যা ৭টার দিকে কুর্মিটোলা বাসস্টপে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাস থেকে নামার পর ওই ছাত্রীকে মুখ চেপে রাস্তার পাশে নিয়ে যায় অজ্ঞাত ব্যক্তি। সেখানে তাকে অজ্ঞান করে ধর্ষণ ও শারীরিক নির্যাতন করা হয়। পরে ১০টার দিকে তার জ্ঞান ফিরলে তিনি নিজেকে নির্জন স্থানে আবিষ্কার করেন।

এরপর ওই ছাত্রী ঘটনাস্থল থেকে গন্তব্যে পৌঁছালে রাত ১২টার পর তাকে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে যায় সহপাঠীরা। আজ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান-স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার থেকে ছাড়পত্র পেয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ওই ছাত্রী।

ধর্ষণের ঘটনায় গতকাল বুধবার ভোরে মজনুকে রাজধানীর শ্যাওড়া থেকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। গতকাল প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মজনু ওই ধর্ষণের ঘটনায় তার সম্পৃক্ত থাকার তথ্য দিয়েছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব।

এর আগে গত সোমবার তরুণীর বাবা ধর্ষণের ঘটনায় ক্যান্টনমেন্ট থানায় মামলা করেন। পরে তা তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয় ডিবিকে।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন