বাইরে আন্দোলন হলেও ভেতরে সমঝোতা!

  

পিএনএস ডেস্ক:সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় নিয়ে দুই কৌশলে এগুচ্ছে সরকার ও আওয়ামী লীগ। এরই অংশ হিসেবে রাজপথে দলীয়ভাবে সমালোচনা অব্যাহত রাখবে আওয়ামী লীগ আর ভেতরে-ভেতরে সমঝোতার চেষ্টা করবে সরকার। এই রায় ও রায়ের পর্যবেক্ষণ সংশোধন করাতে একদিকে আওয়ামী লীগ রাজপথে, সভা-সেমিনারে সমালোচনা করে চাপ সৃষ্টি করবে, অন্যদিকে সরকার সমঝোতার চেষ্টা চালাবে। দল ও সরকারের একাধিক নীতি-নির্ধারণী সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

এদিকে ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ের সমালোচনা জোটগতভাবেও করার ঘোষণা দিয়েছেন ১৪ দলীয় জোট নেতারা। রবিবার এক বৈঠকে তারা এই রায়ের কঠোর সমালোচনা করেন।

দল ও সরকারের দুই কৌশল প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর দুই সদস্য বলেন, ‘চাপ তৈরি করা ছাড়া সমঝোতা হবে না। সরকার ও দলের শীর্ষপর্যায় মনে করে, এ ইস্যুতে সুফল পেতে হলে বিচার বিভাগকে চাপে রাখতে হবে, সমঝোতায়ও যেতে হবে।’

জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট আবদুল মতিন খসরু বলেন, ‘আমাদের অবস্থান স্পষ্ট। রায়ের সঙ্গে দেওয়া অনভিপ্রেত পর্যবেক্ষণ বাতিল করতে হবে। এখানে কোনও ছাড় নেই।’ সমালোচনা ও সমঝোতার কৌশল নিয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘রায়ের পর্যবেক্ষণগুলো নিয়ে আমরা কর্মসূচি পালন করব। সরকার নিজস্ব কৌশলে এগুবে। এর বাইরে কিছু বলতে পারব না।’

সমঝোতার অংশ হিসেবে শনিবার রাতে সরকারের সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার বাসভবনে গিয়ে তার সঙ্গে বৈঠক করলেও রবিবার আওয়ামী লীগের কমপক্ষে ৬ জন নেতা বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে রায় নিয়ে প্রধান বিচারপতির সমালোচনা করেছেন।

আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর দুই সদস্য বলেন, ‘সমঝোর ইঙ্গিত পাওয়ার আগ পর্যন্ত বাইরের সমালোচনা থামবে না। রায়ের বিরুদ্ধে এই সমালোচনা চলবে।’ এদিকে সরকারের দুই জন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা ধারণা করছি, শুধু সমঝোতার চেষ্টায় রায় নিয়ে তৈরি হওয়া জটিলতা নিরসন করা সম্ভব নয়। চাপও থাকতে হবে।’

এ সম্পর্কে ওবায়দুল কাদের বলেন, প্রধান বিচারপতির সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা হয়েছে, আরও হবে। আলোচনার প্রক্রিয়া শেষ হয়নি।

শুধু যে আওয়ামী লীগ নেতারা সমালোচনা অব্যাহত রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তা নয়। দলটির শীর্ষ পর্যায় থেকে রায়ের বিরুদ্ধে সারাদেশের আইনজীবী নেতাদেরও সমালোচনা অব্যাহত রাখতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। আইনজীবী নেতারা রবিবার থেকে তিন দিনের কর্মসূচিও পালন করা শুরু করেছেন। এরমধ্য দিয়ে তরা জনসচেতনতা-জনমত গঠনের কাজ করে যাচ্ছেন বলে জানালেন দলের নীতি-নির্ধারণী পর্যায়ের নেতারা।

সরকারের গুরুত্বপূর্ণ একজন মন্ত্রী জানান, শনিবার রাতে প্রধান বিচারপতির সঙ্গে ওবায়দুল কাদের বৈঠক করেছেন। বৈঠকে সন্তোষজনক কোনও পথ বের হয়নি। আরও কয়েক দফা বৈঠক হবে। এই বৈঠকে প্রধান বিচারপতি রায়ের ব্যাপারে তার দৃষ্টিকোণ তুলে ধরেছেন, ওবায়দুল কাদের দল ও সরকারের মনোভাব তুলে ধরেছেন। তবে একটি উপায় বের হবে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবউল আলম হানিফ বলেন, ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ে আদালত যে পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন, তা বাদ দিতে হবে। এ ব্যাপারে আমাদের অবস্থান কঠোর।

তিনি বলেন, রায়ে জনগণের ক্ষমতা হরণ করা হয়েছে। ফলে এটা মানা যায় না।ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে প্রধান বিচারপতির বৈঠক সম্পর্কে তিনি বলেন, এটা তার ব্যাপার। এ সম্পর্কে তিনিই ভালো বলতে পারবেন। এটি সমঝোতার প্রক্রিয়া কিনা, তা বলতে রাজি হননি তিনি।


পিএনএস/আলআমীন

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech