সুখী দম্পতি

  


পিএনএস ডেস্ক: সম্পর্কের শুরুটা যত সহজই হোক না কেন, তা চালিয়ে যাওয়া খুব সহজসাধ্য নয়। একটি সম্পর্ক সফল করতে হলে দুই পক্ষেরই বিভিন্ন পরীক্ষার মধ্য দিয়ে আসতে হয়। এটি সহজ না হলেও অসম্ভব নয়। সুখী দম্পতির বিষয়টিও তেমন। একটা জীবন একজন মানুষের সঙ্গে কাটিয়ে দেয়ার বিষয়টিতে জড়িয়ে থাকে নানা গল্প। কখনো তা ধৈর্যের, কখনো ত্যাগের, কখনো ভালোবাসার। কিছু চিহ্ন দেখলেই সুখী দাম্পত্য চেনা যায়-

স্পর্শ
দীর্ঘদিন একসঙ্গে থাকলে শারীরিক সম্পর্কেও অনেক পরিবর্তন আসে। একটা সময়ের পর রোজ যৌন সম্পর্ক হয় না, কিন্তু তাই বলে তারা পরস্পরের কাছাকাছি আসা বন্ধ করেও দেন না। সিনেমায় যেমন দেখা যায়, স্বামী-স্ত্রী কাজে বেরোনোর আগে পরস্পরকে চুম্বন করেন, তেমনটা বাস্তবেও করা কিন্তু সুখী দাম্পত্যেরই লক্ষণ।

আলাদা শখ
সুখী দম্পতি পরস্পরের সঙ্গে অনেকটা সময় একসঙ্গে কাটান, পাশাপাশি নিজেদের পছন্দের কাজগুলো করতেও পিছপা হন না। একে অপরের আগ্রহের বিষয়গুলোয় উৎসাহ জোগানো এবং সেই সঙ্গে নিজের জন্যও খানিকটা সময় আলাদা করে রাখাটা খুব প্রয়োজনীয়। মনোবিদেরা বলেন, যাদের নানা বিষয়ে উৎসাহ থাকে, তারা একে অপরকে নিয়েও আগ্রহটা বাঁচিয়ে রাখতে পারেন।

পাশে থাকা
দাম্পত্য সম্পর্কে পরস্পরের দোষত্রুটিগুলোকে মেনে নেওয়ার অভ্যেস তৈরি করতে হবে। কেউই পারফেক্ট হয় না, আপনিও নন। আপনার দোষত্রুটি যদি অন্য মানুষটি মেনে নিয়ে থাকেন, তা হলে তার ভুলচুকও আপনাকে মেনে নিতে হবে। ভালো খারাপ সব কিছু একসঙ্গে সামলাতে পারলে প্রমাণিত হবে আপনারা ক্ষমাশীল এবং সম্পর্কটাকে সুস্থ রাখতে আগ্রহী।

পরিবারের প্রতি উষ্ণতা
একে অপরের পরিবারের সদস্য হয়ে ওঠাটাও সফল দাম্পত্যের অন্যতম শর্ত। অপছন্দ হলেও একে অপরের পরিবারের সদস্যদের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকাটা জরুরি।

আর্থিক ভারসাম্য
সুখী দম্পতিরা আর্থিক ভারসাম্য বজায় রেখেই চলেন। সাধারণত উপার্জন, টাকা জমা ও খরচ বিষয়ে তাদের ধ্যানধারণা একইরকম হয়। টাকাপয়সা খরচের অভ্যেসে ফারাক থাকার দরুন বহু বিয়ে ভেঙে যায়। তাই আর্থিক ভারসাম্য বজায় রাখা জরুরি। বড় কোনও খরচ করার আগে পরস্পরকে জানিয়ে রাখুন।

পিএনএস/ হাফিজুল ইসলাম

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech