তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত পরীক্ষার পরিবর্তে মূল্যায়ন পদ্ধতি

  


পিএনএস ডেস্ক: অতিরিক্ত চাপে লেখাপড়া নিয়ে শিশুদের মধ্যে যেন ভীতি তৈরি না হয় সেজন্য শিক্ষক ও অভিভাবকদের নজর দিতে গত ১৩ মার্চ এক অনুষ্ঠানে অনুরোধ রাখেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শিশুর ওপর থেকে পরীক্ষার চাপ কমাতে প্রধানমন্ত্রী সম্প্রতি প্রাথমিক স্কুলে প্রথম থেকে তৃতীয় শ্রেণীর সব পরীক্ষা তুলে দিতে গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়কে নির্দেশনা দেন।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে পরীক্ষার পরিবর্তে তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত শ্রেণীকক্ষে ধারাবাহিক মূল্যায়ন করার সিদ্বান্ত নিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। নতুন এ পদ্ধতি কিভাবে বাস্তবায়ন করা হবে এবং এ পদ্ধতিটি কিভাবে কাজ করবে তা নিয়ে আজ প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্টদের নিয়ে সভা আহ্বান করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে মন্ত্রণালয় থেকে একটি ধারণাপত্র তৈরি করা হয়েছে বলে জানা গেছে। আজকের বৈঠকে এ ধারণাপত্রটি উপস্থাপন করা হবে। এ বৈঠকে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবির) কারিকুলাম বিশেষজ্ঞ, শিক্ষাবিদ এবং শিশু বিশেষজ্ঞসহ সংশ্লিষ্টদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

আজকের বৈঠকের কথা জানিয়ে প্রাথামিক ও গণ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব মো: আকরাম-আল-হোসেন গতকাল নিজ দফতরে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত পরীক্ষা তুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এর পরিবর্তে কোন পদ্ধতিতে শিশু শিক্ষার্থীদের মেধা মূল্যায়ন করা যাবে তা নিয়ে আজকের বৈঠকে মতামত নেয়া হবে।

সচিব জানান, আগামী শিক্ষাবর্ষ (২০২০) থেকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পরীক্ষার পরিবর্তে নতুন পদ্ধতিটি চালু করা হবে। এটি চালুর পর প্রতিক্রিয়া দেখেই পরবর্তিতে করণীয় নির্ধারণ করা হবে।

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গছে, আজকের বৈঠকে উপস্থাপনের জন্য প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের (ডিপিই) প্রস্তাবনায় এ ধারণাপত্র প্রণয়ন করা হয়েছে। আজ মন্ত্রণালয় থেকে সংশ্লিষ্টদের কাছে এ ধারণাপত্র তুলে ধরা হবে। ধারণাপত্রে বলা হয়েছে, শিক্ষার্থীর শোনা, বলা, পড়া ও লেখা এ চারটি বিষয়ে মূল্যায়ন করা হবে। মূল্যায়ন পদ্ধতি বাস্তবায়ন করতে আজ একটি কারিগরি কমিটি গঠনও করা হতে পারে। সে কমিটিকে দায়িত্ব দেয়া হবে সারা দেশের শিক্ষক অভিভাবকসহ অনান্যদের মতামতের মাধ্যমে মূল্যায়ন পদ্ধতি চূড়ান্ত করতে।

পিএনএস/আনোয়ার

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech