বুড়ি তিস্তা নদীর গেট বন্ধ হওয়ায় পানি বন্ধী ২০ হাজার মানুষ

  

পিএনএস, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি : বাংলাদেশ কৃষি প্রধান দেশ কৃষি তাদের এক মাত্র সম্বল পানি বন্ধীর কারণে তাদের শেষ সম্বলটুকু হাড়াতে বসেছে প্রায় ২০ হাজার মানুষ। জানা গেছে, নীলফামারী ডিমলা উপজেলা ও পাশ্ববর্তী জলঢাকা উপজেলা আংশিক সমন্বয়ে ১৪টি গেইট বিশিষ্ট বুড়ি তিস্তা নদীর উপরে অবস্থিত বুড়ি তিস্তা ব্রিজ। ব্রিজের সামনে ডিমলা, জলঢাকা ২ উপজেলার ১২১৭.৫০ একর জমি তদানিন্তন সময়ে নীলফামারী পানি উন্নয়ন বোর্ড ৪০ বছরের জন্য লিজ গ্রহণ করলে লিজের শর্ত অনুযায়ী শর্ত পেরিয়ে যায়।

এদিকে জলঢাকা উপজেলার খারিজা গোলনা মৌজা ডিমলা উপজেলা রামডাঙ্গা, কুটিরডাঙ্গা, পচারহাট সহ ৪ মৌজার লোক সম্বনয়ে লিজ শর্ত পূরণ হওয়া পর তা অধিকরন চেয়ে গত ১৯/১১/২০১৭ সালে ঢাকা হাউ কোর্টে বিচারাধীন পিটিশন দায়ের করেন পিটিশন নং- ৭৫৪৭, পিটিশনের আলোকে মাসুদ রানা, মোসলেম, রহিম উদ্দিন, দেলোয়ার রহমান, মশিয়ার রহমান, মহিদুল ইসলাম, বাদল মিয়া জানায় আদালতের পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত ব্রিজের গেইট খোলা থাকবে এবং তা ছিল। অভিযোগকারীগণ আরো বলেন গত ১৭/০৬/২০১৮ তারিখে হাঠাৎ করে নীলফামারী পওর বিভাগ ও স্থানীয় কিছু স্বার্থনেষি মহলের কিছু অসাধু লোক মিলে গেইট বন্ধ করে দেয়। যার ফলে উজানের প্রায় বিশ হাজার পরিবার পানি বন্ধী হয় এবং ফসলি আবাদ বিনষ্ট হয়ে যায়।

এতে তারা নিরুপায় হয়ে নিকটস্থ ডিমলা থানায় ১৭/০৬/২০১৮ তারিখ একটি আবেদন করলে ডিমলা থানার এসআই মাসুদ, মোস্তফা, রাশেদ ঘটনা স্থল যান এবং উপস্থিত জনতাকে আইনের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শন এবং নীলফামারী পওর বিভাগের সাথে আসুসমস্যা সমাধানের পরামর্শ প্রদান করেন। এ বিষয়ে কথা হয় এসডি মোস্তাফিজুর হকের সাথে তিনি প্রতিবেদকে বলেন আমার জনগনের শত্রুনই। কি পরিমাণ পানি ধরে রাখলে উজানের মৎস চাষিরা জীবিকা নির্বাহ করতে পারবে তা আমাদের জানা। ৪০ বছরের লিজ শর্ত সত্য নয়। ড্যানজার লেভেল হলে গেইট তুলে দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য যে, এলাকাবাসীর প্রাণের দাবি গেইট বন্ধ থাকলে লাভের চেয়ে ক্ষতির পারিমাণ বেশি হবে। তাই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করছি।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল


 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech