পুলিশের হিসাবে ‘ডাকাত’ স্বজনদের কাছে ‘কবুতর ব্যবসায়ী’!

  

পিএনএস ডেস্ক : যশোরে সড়কের পাশ থেকে এক লাশ উদ্ধারের পর পুলিশ দাবি করেছে, দুই দল ডাকাতের বন্দুকযুদ্ধে গুলিবিদ্ধ হয়ে তার মৃত্যু হয়েছে। নিহত বাবর আলী ওরফে বাবু (৪০) খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার বেতাডাঙ্গা গ্রামের ইউনুস আলীর ছেলে।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে সদরের রহমতপুরের কানাগেট এলাকা থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। পুলিশ বাবুকে এক ডজন মামলার আসামি ও ডাকাত দলের সর্দার বলে শনাক্ত করলেও তার স্বজনরা বলছেন, তিনি কবুতরের ব্যবসা করতেন। তার বিরুদ্ধে কোনো মামলার তথ্য তারা জানেন না।

কোতোয়ালি থানার ওসি অপূর্ব হাসান বলেন, ডাকাতদের দুটি দলের মধ্যে গোলাগুলির খবর শুনে পুলিশ যশোর-ঝিনাইদহ সড়কের রহমতপুরের কানাগেট এলাকায় গিয়ে একজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পায়। তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শুটার গান, একটি গুলি, দুটি ধারালো হাসুয়া, একটি করাত ও কয়েক জোড়া স্যান্ডেল উদ্ধার করা হয়। তার বিরুদ্ধে কোতোয়ালি ও চৌগাছা থানায় প্রায় এক ডজন মামলা রয়েছে।

তবে হাসপাতালে তার মরদেহ গ্রহণ করতে আসা চাচা ময়েজ আলী মোড়ল বলেন, বাবু বিভিন্ন গ্রাম থেকে কবুতর সংগ্রহ করে বাজারে নিয়ে বিক্রি করতেন। গত সোমবার তিনি কেশবপুর উপজেলার কড়ভাঙা গ্রামে খালু শ্বশুরের বাড়ি যাওয়ার কথা বলে নিজ বাড়ি থেকে বের হওয়ার পর থেকে নিখোঁজ ছিলেন।

খুলনার ডুমুরিয়ার বাসিন্দার বিরুদ্ধে যশোরে মামলা থাকার ব্যাখ্যা জানতে চাইলে ওসি অপূর্ব বলেন, বাবু আসলে ডাকাত দলের সর্দার। তিনি ঘুরে ঘুরে এই এলাকাতেই ডাকাতি করতেন। রহমতনগর এলাকাটি ডাকাতির জন্য পরিচিতি আছে।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech