টেলিফোন এক্সচেঞ্জ অফিসে কিশোরীকে ধর্ষণ!

  

পিএনএস ডেস্ক : বাড়ি থেকে কর্মস্থলে যাওয়ার পথে বৃষ্টি থেকে বাঁচতে গিয়ে গণধর্ষণের শিকার হয়েছে এক কিশোরী। শনিবার ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার এ ঘটনায় গ্রেফতার তিন যুবক আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

নান্দাইল মডেল থানার ওসি মো. কামরুল ইসলাম মিয়া এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নির্যাতনের শিকার কিশোরীর পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, শনিবার বিকেলে বাড়ি থেকে ইজিবাইকে নান্দাইল পৌর এলাকায় যাওয়ার জন্য রওনা হয় ওই কিশোরী। সেখানে সে একটি বাসায় গৃহপরিচারিকার কাজ করে। পথে প্রচণ্ড বৃষ্টির কারণে ইজিবাইক চালক উজ্জল সাহা তাকে নিয়ে নান্দাইল টেলিফোন এক্সচেঞ্জ অফিসে গিয়ে ওঠেন। সেখানে আগে থেকেই অপেক্ষায় থাকা রেজভী ও হারিছসহ তিনজন মেয়েটিকে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। বৃষ্টি থামার পর স্থানীয়রা বিষয়টি টের পেয়ে মেয়েটিকে উদ্ধার করে নান্দাইল থানায় নিয়ে যান।

পরে নান্দাইল মডেল থানার একদল পুলিশ অভিযান শুরু করে। অভিযান চালিয়ে আটক করা হয় ইজিবাইকের চালক উজ্জল সাহাকে। তার বাড়ি নেত্রকোনোয়।

এরপর আটক করা হয় পৌর এলাকার চারিআনিপাড়া মহল্লার ফারুক মিয়ার ছেলে রেজভী মিয়া ও সরু মিয়ার ছেলে হারিছ উদ্দিনকে। এ ঘটনায় নির্যাতিতা মেয়েটি থানায় তিন যুবককে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করে।

ওই মামলায় তিন যুবককে গ্রেফতার দেখিয়ে রোববার দুপুরে ময়মনসিংহ ৪ নম্বর আমলী আদালতে হাজির করা হয়। এরপর বিচারক নয়ন চন্দ্র মোদকের আদালতে ধর্ষণের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় তারা। জবানবন্দি গ্রহণ শেষে তিনজনকে কারাগারে পাঠানো হয়।

এদিকে নির্যাতনের শিকার মেয়েটিকেও স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য রোববার ময়মনসিংহ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

নান্দাইল মডেল থানার ওসি বলেন, কাজে আসার পথে প্রচণ্ড বৃষ্টি থাকায় মেয়েটি আশ্রয় নিয়েছিলো। সেই সুযোগে সেখানে ইজিবাইকের চালকসহ তিনজন মিলে তাকে ধর্ষণ করে। তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক দেওয়ার পর যুবকদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

পিএনএস/জে এ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech