ডিমলায় পূর্ব শত্রুতার জেরে প্রতিপক্ষের মুরগী নিধন : এ কেমন শত্রুতা

  

পিএনএস, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি : পারিবারিক কলহের জেড়ে এবার বিষ প্রয়োগে মুরগী নিধনে অভিনব কায়দা অবলম্বন করেছে প্রতিপক্ষ বলে খবর পাওয়া গেছে। পারিবারিক কলহের কারনে এভাবে কোন মানুষ প্রতিপক্ষের মুরগী নিধন করতে পারে ? এটা আমাদের জানা ছিলো না। এ কেমন শত্রুতা সামান্য মুরগীর সাথে। একই সাথে ২৮টি মুরগী নিধনের ঘটনায় এলাকায় আলোচনা সমালোচনার ঝড় বইছে বলেও স্থানীয়রা দাবী করছেন।

জানা যায়,এ ঘটনায় ঐসব মৃত মুরগীর মালিক আবু কালাম ডিমলা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন বলেও আবু কালাম জানিয়েছেন। ঘটনার সূত্রে প্রকাশ, নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার সদর ইউনিয়নের নটাবাড়ী সরকারী প্র্থামিক বিদ্যালয় মাঠ সংলগ্ন মৃত নছিমুদ্দিন এর পুত্র আবু কালামের বাড়ীতে এঘটনা ঘটে। গত ১০ নভেম্বর শনিবার অভিযোগে জানা গেছে, উক্ত গ্রামের আবু কালামের অভাবের সংসারে কোন মতে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সংসার জীবন অতিবাহিত করছেন তার-যেন নুন আনতে পান্তা ফুরায় অবস্থা। তাঁদের এ অভাবী সংসারে বেশ কিছু মুরগী পালন করেন আসছিলো আবু কালাম। এরই মধ্যে দীর্ঘদিনের পূর্ব শত্রুতার জেরে সু-কৌশলে প্রতিবেশী কবিরুল ও তার স্ত্রী রুমি তাদের জমিতে সবজি ক্ষেতে ভাতের সাথে বিষ মিশিয়ে ছিটিয়ে দিলে সেই ভাত খেয়ে অসহায় দরিদ্র আবু কালামের ২৮টি মুরগী একই দিনে মারা যায়।

এ ঘটনায় দরিদ্র আবু কালাম কোন উপায়ন্তর খুজে না পেয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারকে মৃত মুরগীগুলি দেখিয়ে বিচার দাবী করেন। কিন্তু কে শুনে কার কথা। বিচারের বানী যেন নিভৃতে কাঁদে। অভাগা যেদিকে যায় সাগর সুকিয়ে যায়। অসহায় গরীব অতিদরিদ্র খেটে খাওয়া দিনমুজুর আবু কালাম অবশেষে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করে এ ঘটনার বিচার চেয়েছে। এ বিষয়য়ে ডিমলা থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) মোঃ মফিজ উদ্দিন শেখ অভিযোগ প্রাপ্তির কথা স্বীকার করে বলেন আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শনের জন্য এসআই আবু কালামকে দায়িত্ব প্রদান করেছি। ঘটনার সত্যতা মিললে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এদিকে ২৮টি মুরগী নিধনের ক্ষতিপুরন দাবী করে বিচার চেয়ে দ্বারে দ্বারে ঘুরছে দরিদ্র অসহায় দিন মুজুর আবু কালাম।

পিএনএস/মোঃ শ্যামল ইসলাম রাসেল

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন
Developed by Diligent InfoTech