আমরা এত নীচু মানসিকতার নই, ইলিশ প্রশ্নে পররাষ্ট্রমন্ত্রী

  23-06-2021 12:31AM

পিএনএস ডেস্ক: ‘কোভিড-টিকা পাঠায়নি দিল্লি­, ইলিশও আসছে না ঢাকা থেকে’ ভারতের পশ্চিমবঙ্গের আনন্দবাজার পত্রিকার অনলাইনে এমন খবরে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন বলেছেন, আমরা এত নীচু মানসিকতার নই।

মঙ্গলবার পশ্চিমবঙ্গের আনন্দবাজার পত্রিকার অনলাইনে কোভিড-টিকা পাঠায়নি দিল্লি­, ইলিশও আসছে না ঢাকা থেকে, প্রশ্নের মুখে মোদির ‘সোনালি অধ্যায়’ এই শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

প্রকাশিত প্রতিবেদনে তারা লিখেছে, বাংলাদেশের প্রায় ১৬ লাখ মানুষ ভারতীয় করোনা প্রতিষেধকের প্রথম ডোজ নিয়ে বসে রয়েছেন। সময় পেরিয়ে গেছে। ভারত বলছে, আপাতত ভ্যাকসিনের আর একটি ডোজও পাঠানো সম্ভব নয়।

দীর্ঘদিন ধরেই ভারতে ইলিশ রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে বাংলাদেশের। তা সত্ত্বেও গত বছর জামাইষষ্ঠীর সময়ে পশ্চিমবঙ্গে দু’হাজার টন ইলিশ রপ্তানিতে ছাড়পত্র দিয়েছিল বর্তমান সরকার। কিন্তু এ বছর পশ্চিমবঙ্গের পাতে পড়েনি পদ্মার ইলিশ।

অবশ্য ভারতের বিশেষজ্ঞদের বরাতে পত্রিকাটি লিখেছে, এমন সরলীকরণ করাটাও ঠিক হবে না যে প্রতিশ্রুত টিকা পাঠানো হয়নি বলেই ইলিশ রপ্তানি বন্ধ থাকল। কিন্তু এটাও ঠিক দু’পক্ষের সম্পর্ক এতটাই আড়ষ্ট হয়ে গেছে, ইলিশ-কূটনীতির আবহাওয়াটাই আর নেই।

প্রসঙ্গত, ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্কে ইলিশ এক কূটনৈতিক প্রতীকও বটে। এর আগে স্থলসীমান্ত চুক্তি সই করতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন ঢাকায় গিয়েছিলেন, ইলিশ নিয়ে কিছুটা রসিকতার ঢংয়ে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কথা হয়েছিল তার। ভোজের তালিকায় ইলিশের পঞ্চপদ দেখে মমতা হাসিনাকে প্রশ্ন করেছিলেন, কেন তারা ইলিশ আটকে রেখেছেন? শেখ হাসিনার জবাব ছিল, তিস্তার পানি এলেই মাছ সাঁতার কেটে চলে যাবে ওপারে!

এরইমধ্যে বেইজিংয়ের উপহার হিসেবে প্রায় ১১ লাখ ডোজ চীনা প্রতিষেধক ঢাকায় পৌঁছে গেছে। আরও ৩০ লাখ ডোজের দাম দেওয়া হয়ে গেছে। সেটাও পৌঁছাবে শিগগিরই।

টিকার বিষয়টি নিয়ে মার্চের ঢাকা সফরেও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি কথা দিয়েছিলেন বাংলাদেশের শীর্ষ নেতৃত্বকে। কিন্তু ভারতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আঘাতের পর বাংলাদেশ, ভুটান, শ্রীলংকার মতো প্রতিবেশী দেশগুলোতে টিকা রপ্তানি স্থগিতের সিদ্ধান্ত নেয় ভারত।

পিএনএস/এএ

 

@PNSNews24.com

আপনার মন্তব্য প্রকাশ করুন